Breaking News
ফরিদপুরের সদরপুরে রাতের আধাঁরে দোকান ঘর ভাংচুর ও বাড়ী ঘরে হামলার অভিযোগ

ফরিদপুরের সদরপুরে রাতের আধাঁরে দোকান ঘর ভাংচুর ও বাড়ী ঘরে হামলার অভিযোগ

ফরিদপুর  প্রতিনিধি:

ফরিদপুরের সদরপুর উপজেলার আকটেরচর ইউনিয়নের চৌকদারডাঙ্গী গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের দোকান ঘর ও বাড়ি ঘর রাতের অন্ধকারে স্কেবেটর দিয়ে ভাংচুরের অভিযোগ উঠেছে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে। এই হামলায় আব্দুর রাজ্জাক আহত হলে তাকে সদরপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

রাজ্জাকের ছেলে শেখ লিটন হোসাইন জানান, আমাদের বাড়ির পাশের একটি জমি যেটা আমার দাদার বাপের আরএস এবং আমার দাদার নামে সিএস রেকর্ড রয়েছে। কিন্তু বিএস রেকর্ডের সময় আমরা এলাকায় না থাকায় আমাদের শরীকদের নামে বিএস রেকর্ড হয় । এর জন্য আমরা ল্যান্ড সর্ভে কোর্টে রেকর্ড সংশোধনের মামলা করেছি এবং দেওয়ানি আদালতে একটি বাটোয়ারা মামলা করেছি। দুট্ মামলাই চলমান রয়েছে ।

এই জমি আমার দাদা থেকে শুরু করে এখন প্রযর্ন্ত আমাদের ভোগ দখলে রয়েছে। গত বছর আমরা যখন ঐ জমিতে দোকান ঘর নির্মান করি , তখন এলাকার কিছু দুস্কৃতি লোক আমাদের নিকট চাঁদা দাবী করে । আর চাদাঁ না দিলে আমাদের ঘর তুলতে দিবেনা। তখন আমরা তাদের ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দিয়ে ঘর তুলি । কিছুদিন পর তারা আবার বেশি করে চাঁদা দাবী করে , তখন চাঁদা না দেওয়াই আমার দোকান ঘর ভেঙ্গে দেই । এরপর কিছুদিন ঐ দুস্কৃতিকারীরা আমাদের যে শরীকদের নামে বিএস রেকর্ড হয়েছে,তাদের নিকট থেকে বিএস মুলে ঐ জমি দলিল করে নেই । এরপর তারা আমাদের ঐ জমি দখলের পায়তারা করে। এই নিয়ে এলাকায় এবং থানায় একাধিক শালিশ বৈঠাক হয়েছে । প্রত্যেক শালিশ বেঠাকে আমাদের পক্ষে রায় দেওয়া হয় । কিন্তু ঐ দুস্কৃতিকারীরা পরে ঐ শালিশ মানে না ।

তিনি আরো বলেন, থানার ওসির অনুমতি নিয়ে অবার আমরা আমাদের ঐ জমিতে দোকান ঘর নির্মান করি । গত ১২ই এপ্রিল রাত আনুমানিক সাড়ে ৮টার দিকে ঐ দুস্কৃতিকারী মোঃ রুবের শেখ,মনির শেখ, পিং শেখ আব্দুল মান্নান,আলম শিকদার ,কলম শিকদার ,কালাম শিকদার,ওয়াজ শিকদার পিং ছমের শিকদার,আফজাল শিকদার,নজরুল শিকদার পিং কালাম শিকদার গংদের নেতৃত্বে প্রায় ৫০/৬০জন লোক লাঠি শোঠা ও দেশিও অস্ত্র এবং স্কেবেটর দিয়ে আমাদের দোকান ঘর ভাংচুর করে। এরপর তারা আমাদের বাড়িতে হামলা করে । আমরা ভয়ে সবাই ঘরের মধ্যে পালিয়ে থাকি। হামলাকারীরা আমার ঘরের দুই পাশের জানালার থাই গ্লাস ভাংচুর করে এবং ঘরের দরজা ভাংগার চেষ্টা করে। তাদের হামলায় আমার পিতা আঃ রাজ্জাক আহত হলে তাকে সদরপুর হাসপাতালে ভর্তি করি । তিনি বলেন,আমরা এলাকার নিরহ মানুষ, আমার চাচা ও ভাইয়েরা সবাই বিদেশ থাকে আমি একা বাড়িতে থাকি । আমি এবং বাড়ির নারী সদস্যরা চরম নিরাপত্তা হীনতায় ভোগছি । এবিষয়ে অভিযুক্ত রুবেলের সাথে কথা রুবেল জানান, ঐ জমি আমরা ক্রয় সুত্রে মালিক , ক্রয়কৃত জমিতে রাজ্জাক শেখ গংরা আমাদের যেতে দেয়না। এই নিয়ে এলাকায় কয়েকবার শালিশ বেঠাক হয়েছে । তাদের বাড়ি ঘর কারা ভাংচুর করছে আমরা জানিনা। এবিষয়ে সদরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত সুব্রত গোলদারের নিকট জানতে চাইলে তিনি জানান, বিষয়টা নিয়ে তাদের মধ্যে একটা ঝামেলা হয়েছে । এটা তারা নিজেরা বসে আপোস মিমাংশার চেষ্টা করছে । তিনি বলেন, এই সমস্যা র্দীঘদিনের ।এক বার এক পক্ষ ঘর তোলে আরেক পক্ষ ভেগে দেই, আবার অন্য পক্ষ ঘর তুলে আরেক পক্ষ ভেংগে দেই। এভাবেই চলছে, তবে উভয় পক্ষকে শান্তিপুর্ণ অবস্থান বজায় রাখতে বলা হয়েছে।