জেলে পরিবারের নারীদের স্বাবলম্বী করতে হলে চাহিদা ভিত্তিক প্রশিক্ষণ জরুরি

সাব্বির আলম বাবু, ভোলাঃ
ভোলায় প্রাকৃতিক সম্পদকে কাজে লাগিয়ে জেলে পরিবারের নারী সদস্যদের স্বাবলম্বী হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ভোলার উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম। তিনি বলেন, সম্পদের সঠিক ব্যবহার না করার কারণে আমরা পিছিয়ে। অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি আসছে না। জেলে সম্প্রদায় অবহেলিত, নানা সুবিধা থেকে বঞ্চিত। সঠিক তথ্যের অভাবে অনেকে সরকারি বেসরকারি সুবিধা পায় না। নিজেদের স্বাবলম্বী করতে প্রাকৃতিক সম্পদের সদ্ব্যবহার করতে হবে। বুধবার সদর উপজেলা পরিষদের কনফারেন্স হলে জেলে পরিবারের সদস্য ও মাল্টি স্টেকহোল্ডারদের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইউএনও এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, সম্প্রতি সাগরে মাছ ধরতে গিয়ে ভোলায় জেলে পরিবারের সদস্য নিহত হয়েছে। যে যার অবস্থান থেকে তাদের সহায়তায় পাশে দাঁড়ানো দরকার। সভায় সভাপতিত্ব করেন ভোলা সদর উপজেলার সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা (সদর) মো: জামাল হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন ভোলা সদর, উপজেলার প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. শাহিন মাহমুদ, উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মো: দেলোয়ার হোসেন, ভোলা সদর মডেল থানার এসআই মো: কাজল ইসলাম, দৈনিক প্রথম আলোর জেলা প্রতিনিধি মো: নেয়ামত উল্লা, উপজেলা উপ-কৃষি কর্মকর্তা মোঃ লুৎফর রহমান সুইজ ব্যুরোর আর্থিক সহায়তায় প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে কোস্ট ফাউন্ডেশন। প্রকল্প ম্যানেজার রাশিদা বেগমের সঞ্চালনায় প্রকল্পের কার্যক্রম বিষয়ে মালন্টিমিডিয়া তথ্য ভিত্তিক বক্তব্য প্রদান করেন, প্রজেক্ট অফিসার সোহেল মাহমুদ, তথ্য ছবি প্রতিবেদনে কোস্ট ফাউন্ডেশনের সন্বয়কারী হিসার এন্ড প্রশাসন মো: ইব্রাহিম। প্রকল্পের বিভিন্ন দিক নিয়ে উপস্থিততে সভায় নারীদের ক্ষমতায়নে নিজেদের পাশাপাশি
অর্থনৈতিকভাবে দেশকে সমৃদ্ধ করার উপর গুরুত্বারোপ করেন বক্তারা। সভায় বিভিন্ন ইউপি চেয়ারম্যান, গণমাধ্যমকর্মী, নারী প্রতিনিধি, জেলে, আড়তদাররা উপস্থিত ছিলেন। ভোলা সদরের ধনিয়া ও ভেদুরিয়া নারী সদস্যদের চাহিদা অনুযায়ী প্রশিক্ষণ প্রদান, স্বাস্থ্য সেবামূলক প্রচারণা, মৌলিক অধিকার আদায়ে সহযোগিতা করা, নারী নেতৃত্বের বিকাশ ঘটানো, ঝরে পড়া শিশুদের স্কুলমুখী করা, মৎস্য সম্পদ সংরক্ষণে সরকারি আইন বাস্তবায়নে সহযোগিতা করা, ইউনিয়ন পরিষদসহ সরকারি অফিস গুলোতে নারীদের অবাধ যাতায়াত ও অধিকার নিশ্চিতে কাজ করছে কোস্ট ফাউন্ডেশন। ভোলার তিনশত জনসহ মোট ৯০০ জেলে পরিবারের নারী সদস্যদের প্রশিক্ষণের আওতায় আনা হবে। তাদের প্রত্যেককে প্রয়োজনীয় উপাদান প্রদান ও কারিগরি সহায়তা দেওয়া হবে। এসব জেলে পরিবার থেকে পর্যায়ক্রমে ১০ হাজার মানুষকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে কারিগরি সহায়তা পাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *