পরকীয়া প্রেমে না জড়ানোর শর্তে স্ত্রীর কাছে ৬ লাখ টাকা দাবি! যুবক কারাগারে

সাব্বির আলম বাবু, ভোলাঃ
ভোলায় পরকীয়া প্রেমে না জড়ানোর শর্তে স্ত্রীর কাছে ৬ লাখ টাকা দাবি করার অভিযোগে স্ত্রীর দায়ের করা মামলায় মো. রাজু নামের এক যুবককে আটক করে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) বিজ্ঞ আদালত জেল হাজতে প্রেরন করেব। অভিযুক্ত রাজু ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার দুলারহাট থানার চরযমুনা গ্রামের খোরশেদের ছেলে। তার স্ত্রী মোসা. জান্নাতুল ফেরদৌস উপজেলার দুলারহাট থানার চর তোফাজ্জল গ্রামের জাহাঙ্গীরের মেয়ে।

জানা যায়, রাজুর সঙ্গে জান্নাতের ৮ বছর আগে বিয়ে হয়। তাদের ছয় বছর বয়সের এক ছেলে-সন্তান রয়েছে। বিয়ের বেশ কিছু দিন যাওয়ার পর রাজু অন্য এক নারীর সঙ্গে পরকীয়া প্রেমে আসক্ত হয়ে পড়েন। জান্নাত প্রতিবাদ করলে তাকে একাধিকবার মারধর করেন। এক পর্যায়ে অন্য নারীর সঙ্গে প্রেমে জড়াবেন না এমন শর্তে রাজু ৬ লাখ টাকা দাবি করে জান্নাতের কাছে। জান্নাত টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় প্রায়ই রাজু তার ওপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালায়।

গত ৪ এপ্রিলে যৌতুকের টাকার দাবিতে দুলারহাট বাজারে একটি ভাড়া বাসায় স্ত্রীকে আটকে শারীরিক নির্যাতন চালান রাজু। খবর পেয়ে জান্নাতের বাবার বাড়ির লোকজন তাকে উদ্ধার করে চরফ্যাশন হাসপাতালে ভর্তি করেন। জান্নাত সুস্থ হয়ে দুলারহাট থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। প্রাথমিক তদন্তে ঘটনার সত্যতা পায় পুলিশ। পরে ১৫ জুন জান্নাত বাদী হয়ে দুলারহাট থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেন। মামলার ভিত্তিতে বুধবার (২২ জুন) ঢাকার গাজীপুর থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। রাজুর স্ত্রী জান্নাত বলেন, রাজু বিয়ের পর থেকে বিভিন্নভাবে বাবার বাড়ি থেকে যৌতুক আনতে বলতো। যৌতুকের টাকা না আনতে পারায় আমায় বিভিন্ন ভাবে নির্যাতন করতো। একপর্যায়ে রাজু এক মেয়ের সাথে পরকীয়া প্রেমে জরিয়ে পরে। তাকে বাঁধা দিলে সে আমার কাছে ৬ লাখ টাকা দাবি করে এই প্রেম থেকে সরে আশার জন্য। এতেও আমি টাকা দিতে না পারায় আমার উপর নির্যাতন শুরু করে। আমি আর সহ্য না করতে পেরে থানায় মামলা করেছি। এখন যদি একটু ঠিক হয়।

দুলারহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুরাদ হোসেন জানান, স্ত্রীর মামলার ভিত্তিতে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে ঢাকার গাজীপুর থেকে আসামি রাজুকে গ্রেফতার করা হয়। এবং দুলারহাট থানার পুলিশের মাধ্যমে বৃহষ্পতিবার (২৩ জুন) চরফ্যাশন আদালতে সোপর্দ করা হলে বিচারক কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.