উদ্বোধনের অপেক্ষায় পদ্মা সেতু, সেতুর আদলেই মঞ্চ

কে এম, রাশেদ কামাল, মাদারীপুর প্রতিনিধি:
স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধনের আর মাত্র দুই দিন বাকি। আর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ঘিরে চলছে বিশাল কর্মযজ্ঞ। পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের পর মাদারীপুরের বাংলাবাজার ঘাটে জনসভা করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তাই সেতুর আদলেই তৈরি করা হচ্ছে মঞ্চ। ১১টি পিলারের ওপর ১০টি স্প্যান বসিয়ে তৈরি করা হচ্ছে মঞ্চ।মঞ্চের ঠিক সামনে পানিতে ভাসতে থাকবে বিশাল আকৃতির একটি নৌকা।দেখে মনে হবে পদ্মা সেতুর পাশ দিয়ে বড় একটি নৌকা চলছে। আগামী ২৫ জুন পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের পর ব্যতিক্রমী এই মঞ্চে উঠবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানকে ঐতিহাসিক রূপ দিতে চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি।

বৃহঃবার বিকেলে সরেজমিনে বাংলাবাজার ঘাটে মঞ্চ ও এর আশেপাশে থেকে এমন তথ্যই জানা যায়। সভাস্থলের নিরাপত্তা নিশ্চিতে কাজ করছে সেনাবাহিনী, র‍্যাব, পুলিশ, ফায়ার সার্ভিসসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। বিশাল এ আয়োজন ঘিরে পদ্মা পাড়ের মানুষের মধ্যে বইছে উৎসবের আমেজ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ঘিরেই এখন সকল ব্যস্ততা। প্রায় প্রতিদিনই সকাল বিকেলে সন্ধ্যায় সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সেতু এলাকা পরিদর্শনে যাচ্ছেন। অনুষ্ঠান সফল করতে সংশ্লিষ্টদের দায়িত্ব বুঝিয়ে দেওয়া হচ্ছে, যাতে কোনো ধরনের নাশকতা না ঘটে। এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ঘিরে একসময়ের পদ্মাপাড়ে অবহেলিত অঞ্চল শিবচরে বইছে উৎসবের আমেজ। মঞ্চ তৈরির কাজ শেষ পর্যায়ে। এখন চলছে সাজগোজের কাজ। জনসভা ঘিরে তিন বর্গকিলোমিটার এলাকাজুড়ে আলোকসজ্জার কাজ করছেন শ্রমিকেরা। মঞ্চের চারপাশে নেওয়া হয়েছে নিশ্চিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা। আইন স্মৃঙ্খলাবাহিনীর তত্ত্বাবধায়নে নির্মাণ হচ্ছে এই মঞ্চ।তারা অস্ত্র হাতে সার্বক্ষণিক স্পটে থাকছেন। এছাড়াও কোন ধরনের নাশকতা এড়াতে গোয়েন্দা বাহিনীর কর্মকর্তারাও তৎপর রয়েছেন।

শিবচর উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় সূত্রে জানা গেছে, ২৫ জুন শনিবার পদ্মা সেতুর দুই প্রান্ত মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ও শরীয়তপুরের জাজিরা পয়েন্টে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সশরীর এসে পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করবেন।শিবচর উপজেলার কাঠালবাড়ি ইউনিয়নের বাংলাবাজার ফেরিঘাট এলাকায় জনসভায় যোগ দিবেন। জনসভাকে স্মরণীয় করে রাখতে প্রায় ১৫ একর জমির ওপর ব্যাপক প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। ১৫০ ফুট দৈর্ঘ্য ও ৪০ ফুট প্রস্থের বিশাল মঞ্চ তৈরি করা হয়েছে। নিরাপত্তার জন্য মঞ্চের ভেতরে ও বাইরে বসানো হয়েছে ছয়টি ওয়াচ টাওয়ার। থাকবে দেড় শতাধিক সিসিটিভি ক্যামেরা।র্যাব,পুলিশ,সেনা সদস্য,এসএসএফসহ নানান বাহিনীর তৎপরতায়এ এই অনুষ্ঠানটি ঐতিহাসিক অনুষ্ঠানে রুপ নিবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

সুত্র আরো জানায়, প্রধানমন্ত্রীর আগমন ঘিরে দক্ষিন অঞ্চলের বিভিন্ন এলাকা থেকে ১০ লাখ মানুষের সমাগম হবে। সভাস্থলে ৫০০ অস্থায়ী শৌচাগার, ভিআইপিদের জন্য আরও ২২টি শৌচাগার, সুপেয় পানির লাইন, ৩টি ভ্রাম্যমাণ হাসপাতাল, নারীদের আলাদা বসার ব্যবস্থা, প্রায় ২ বর্গকিলোমিটার আয়তনের সভাস্থলে দূরের দর্শনার্থীদের জন্য ২৬টি এলইডি মনিটর, ৫০০ মাইকের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। এ ছাড়া নদীপথে আসা মানুষের জন্য ২০টি পন্টুন তৈরি করা হচ্ছে।এছাড়াও মোবাইল অপারেটরগুলো তাদের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় ভ্রাম্যমান মোবাইল টাওয়ার নির্মান করছে। জনসভার মঞ্চ তৈরির কাজ করছে ক্যানভাস বাংলাদেশ ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট।

প্রতিষ্ঠানটির উন্নয়নকর্মী কবির হোসেন বলেন, “ব্যতিক্রমী ওই মঞ্চ তৈরির কাজ প্রায় শেষের দিকে। কয়কদিন ধরে তারা দিন রাত কাজ করে যাচ্ছেন। অনেকটা সেতুর আদলেই তৈরি করা হবে উদ্বোধনী মঞ্চ, যাতে কোনো ধরনের দুর্ঘটনা না ঘটে।এছাড়াও কয়েক স্তরের নিরাপত্তা শেড থাকবে।মঞ্চের সামনে পানি থাকবে।তার ওপর ছোট–বড় বেশ কয়েকটি নৌকা ভাসতে থাকবে। মঞ্চটি পুরো পদ্মা সেতুর আদলে তৈরি হয়েছে। এখন চলছে সাজসজ্জার কাজ। পুরো কাজের প্রায় ৯০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। শনিবারের আগেই কাজ শেষ হয়ে যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।”

জনসভাস্থলের দুই বর্গকিলোমিটার জায়গা তত্ত্বাবধানের দায়িত্ব পেয়েছে পিয়ারু সরদার অ্যান্ড সন্স নামের একটি প্রতিষ্ঠান। ওই প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপক মোজ্জামেল হক বলেন, “সভাস্থলে ওয়াচ টাওয়ার, এলইডি মনিটরসহ নিরাপত্তাবিষয়ক সব ধরনের কাজ তাঁরা শেষ করেছেন। স্মরণকালের সেরা আয়োজন হবে এখানে। জনসভায় আসা অতিথিদের কেউ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাৎক্ষণিক চিকিৎসাসেবা দেওয়ার জন্য ভ্রাম্যমাণ হাসপাতাল নির্মাণ করা হয়েছে। এ ছাড়া সভাস্থলে নারীদের বসার জন্য আলাদা ব্যবস্থা করা হয়েছে। ভিআইপি অতিথি, বিদেশি অতিথি ও কূটনীতিকদের জন্য আলাদা জোন করা হয়েছে। ৯০ শতাংশ কাজ শেষ। বাকি ১০ ভাগ কাজ নির্ধারিত সময়ের আগেই শেষ হয়ে যাবে।”

ফায়ার সার্ভিসের ফরিদপুর অঞ্চলের সহকারী পরিচালক নজরুল ইসলাম বলেন, “সভাস্থল ও নৌপথের নিরাপত্তা নিশ্চিতে তাঁদের ১০০ থেকে ১২০ জন ফায়ারম্যান কাজ করবেন। এ ছাড়া বিশেষ নিরাপত্তা বাহিনী (এসএসএফ) নির্দেশনা অনুযায়ী আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আশা করছি কোন সমস্যা হবে না।”

ঘাট এলাকার বিএম হায়দার আলী বলেন, ‘এই পদ্মা সেতু আমাদের দক্ষিণ অঞ্চলের প্রানের সেতু।আমরা ঢাকার থেকে মাত্র ৪০ কিলোমিটার দূরে শুধু এই সেতুটির কারনে আমরা অবহেলিত ছিলাম।মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদের সেতুটি করে দিছি তার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই, আমরা এলাকাবাসী খুবই খুশি। শনিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আসবেন।সেতু উদ্বোধন করবেন, এটা আমাদের জন্য মহা আনন্দের। আমরা তাঁর অপেক্ষায় আছি।’

বাংলাবাজার ঘাটের শস্য বিক্রেতা হাবিবুর রহমান বলেন,” গত বছর ঈদের সময় বাড়ি আসার পথে ফেরিতে অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই করার কারনে ৫ জন লোক মরে গেছিলো।তার আগে স্পীড বোট দূর্ঘটনায় ২৬ জন লোক মরলো।তাছাড়া আগে পরে আমার দেখা প্রায় লঞ্চ ডোবাসহ প্রায় ৬/৭ শত লোক এই ঘাটে বিভিন্ন দূর্ঘটনায় মারা যায়। ‘ অনেক কষ্টে ছিলেন এ অঞ্চলের মানুষ। এখানে আর সেই কষ্ট থাকব না। আমরা খুবই খুশি। আমাদের ব্যবসা বাণিজ্য একটু সমস্যা হইবো। তবে আমরা বাড়ির কাছে বাজারে দোকান ঠিক করেছি। আমাদের কোন সমস্যা হবে না’

Leave a Reply

Your email address will not be published.