ভুলে ভরা জন্মনিবন্ধন সনদ, সংশোধন কার্যক্রমে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

টি.আই সানি,গাজীপুর প্রতিনিধিঃ
ভুলে ভরা জাতীয় জন্মনিবন্ধন সনদ সংশোধন কার্যক্রম,গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলায় ভোগান্তি যেনর শেষ নেই। ডিজিটাল জন্মনিবন্ধন সনদ ও সংশোধন করতে আসা নাগরিকদের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগও রয়েছে অনেক । সবমিলে চরম ভোগান্তিতে নাগরিকরা। অসচেতনভাবে নিবন্ধন কার্যক্রম পরিচালনা করায় ইউনিয়ন পর্যায়ে বাড়ছে ভুলের সংখ্যা। নামমাত্র সরকারি ফিতে এসব সেবা দেয়ার বিধান থাকলেও অভিযোগ উঠেছে নানা অজুহাতে অর্থ হাতিয়ে নেয়ারও।

ভোটার আইডিতে নাম আমিনুল ইসলাম ছেলের ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধনে এসেছে নাম এসেছে আমিরুল ইসলাম। আরেক জন ভোটার আইডিতে নাম মুর্শিদা। মেয়ের ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধনে এসেছে খোরশেদ খাতুন। নাম নার্গিস আক্তার, অথচ জন্মনিবন্ধনে উল্লেখ করা হয়েছে-মোছা.নার্গিস বেগম। এমন সব ভুলের ছড়াছড়ি জন্মনিবন্ধন সনদ ও সংশোধন কার্যক্রমে। স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, আইডি কার্ড দেখে দেখে লিখতে হয়। তাও এতবড় ভুল করে ফেলছে। সংশোধন ঠিক করতেও আমাদের ঘুরতে হয় মাসের পর মাস।

বাধ্যতামূলক এই নাগরিক অধিকার পেতে গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার তেলিহাটি ইউনিয়ন,গাজীপুর ইউনিয়ন,বরমী ইউনিয়ন,কাওরাইদ ইউনিয়ন,মাওনা ইউনিয়ন,রাজাবাড়ী ইউনিয়ন,প্রহলাদপুর ইউনিয়ন,গুসিংগাসহ আটটি ইউনিয়েনের হাজার হাজার মানুষ ভোগান্তিতে পড়েছেন । তাদের অভিযোগ,তথ্য যাচাই-বাছাই অসচেতনভাবে করায় বাড়ছে ভুলের সংখ্যা। এতে বিপাকে পড়তে হচ্ছে চলমান ভোটার তালিকায় নিজেদের অন্তর্ভুক্তিসহ বিভিন্ন সেবায়।

তারা বলছেন, চাহিদামতো টাকা দিতে না পারলে কোথাও কোথাও করা হচ্ছে নানা অজুহাতে হয়রানি। স্থানীয়রা বলেন, সরকারি নিবন্ধন ফি ৫০ টাকা। সংশোধনের কোনো ফি নেই। তারপরেও আমাদের কাছ থেকে ৩০০ টাকা নেয়া হয়েছে।

এদিকে সার্ভারের ধীরগতির কারণে দ্রুত এসব কাগজপত্র সংশোধন করাও কঠিন হচ্ছে বলে জানান,তেলিহাটি ইউনিয়নের কমপিউটারে দায়িত্বে থাকা মোঃ ফরহাদ মিয়া । তবে সমস্যা সমাধানে কাজ চলছে বলে জানান শ্রীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

শ্রীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তরিকুল ইসলাম বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের যারা এই বিষয়গুলো নিয়ে দায়িত্ব পালন করে থাকে, তারা যেন সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করে তার অনুরোধ করছি। যদি কোনো অবহেলা বা অবৈধ আর্থিক লেনদেন হয় তবে তদন্ত করে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সরকারি নিয়মে, জন্মের ৪৫ দিন পর্যন্ত সম্পূর্ণ বিনামূল্যে নিবন্ধন করা গেলেও ৫ বছর বয়সীদের ২৫ টাকা, তারও বেশি বয়স্কদের ৫০ টাকা ফি দিতে হবে। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার পদক্ষেপ হিসেবে ২ হাজার ১০ সাল থেকে অনলাইনে নাগরিকদের জন্মনিবন্ধন বাধ্যতামূলক করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.