মহানবীকে (সা:) নিয়ে কটুক্তির প্রতিবাদে দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে মুসল্লিদের বিক্ষোভ সমাবেশ

মোঃ আসাদুল্লাহ আল গালিব,দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধি:
বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ সা: ও তার প্রিয়তমা স্ত্রী উম্মুল মুমিনীন হযরত আয়েশা সিদ্দীকা রা:-কে অবমাননাকর মন্তব্যের প্রতিবাদে দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলারয় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার (১০ জুন) জুম্মার নামাজের পর উপজেলার রাণীরবন্দরে সাধারণ তাওহীদবাদী মুসলিমের আয়োজনে রাণীরবন্দর কেন্দ্রীয় বালাপাড়া জামে মসজিদ, কংগ্রস মসজিদ, দরগাড়পার মসজিদ, জয়নাল হাজী মসজিদ, কাজীপাড়া মসজিদসহ বিভিন্ন মসজিদ থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে মুসল্লিরা জড়ো হয় দিনাজপুরের রাণীরবন্দর-খানসামা-বাসস্ট্যান রোড এর সামনে সমাবেশে মিলিত হয়।

কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আবুল কালাম আজাদ বলেন- “মহানবী ও তার সহ ধর্মীনি আয়েশা সিদ্দিকার (রা:) বিরুদ্ধে কটুক্তি করা ইসলামের দুশমন। মহানবীকে নিয়ে কটুক্তিকারী ভারতের বিজেপি নেতাদের শাস্তির দাবি জানাচ্ছি। সরকারকে রাষ্ট্রীয়ভাবে প্রতিবাদ এবং ভারতকে কটুক্তিকারীদের শাস্তির দাবি জানানোর দাবি জানাচ্ছি। মহানবীর উম্মতদের জোটবদ্ধভাবে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)-এর সম্মান রক্ষায় কাজ করব।”

সমাবেশে বক্তারা বলেন, প্রতিটি মুসলমানের হৃদয়ে নিজের জীবনের চেয়ে প্রিয় নবী হজরত মোহাম্মদ সা:-এর প্রতি মহব্বত বেশি রয়েছে। তাই বিশ্বের যেকোনো প্রান্তে নবী মোহাম্মদ সা:-কে নিয়ে অপমানজনক বক্তব্য কোনো মুসলিম সহ্য করতে পারে না।

তারা বলেন, সম্প্রতি ভারতের সরকারদলীয় দু’নেতার বক্তব্যে বিশ্বের মুসলিম ফুঁসে ওঠেছে। অবিলম্বে ভারতকে আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমা চাইতে হবে। অন্যথায় বিশ্বজুড়ে মুসলিমদের ক্ষোভের বিস্ফোরণ ঘটবে। ওই বিস্ফোরণের দাবানলে পুড়ে ছারখার হয়ে যাবে ভারত।

বক্তারা আরো বলেন, বাংলাদেশ সরকারের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানাচ্ছি, সংসদে নিন্দা প্রস্তাব করে ৯০ শতাংশ মুসলমানের কলিজা শীতল করুন। উগ্র ও সন্ত্রাসী মনোভাবাপন্ন ভারতের সাথে সকল অর্থনৈতিক ও কুটনৈতিক সম্পর্ক বয়কট করুন। এতে বিশ্বের দ্বিতীয় মুসলিম দেশ হিসেবে পরিচয় ও স্বীকৃতি বজায় রাখবে বাংলাদেশ।

প্রতিবাদ সমাবেশে আরোও উপস্থিত ছিলেন দরগাড়পার জামে মসজিদের খতিব মাওলানা মো. রবিউল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আলহজ্ব মোঃ গোলাম আজম পারভেজ, জয়নাল হাজী জামে মসজিদের খতিব মাওলানা মনোয়ার বিন- ময়েউদ্দিন, কাজীপাড়া জামে মসজিদের খতিব মাওলানা সাদিকুল ইসলাম, রাণীরবন্দর হাট-বায়তুন-হাম জামে মসজিদের খতিব মাওলানা খয়রাদ বিন শাহিদুল্লাহ, রাণীরবন্দর মটর শ্রমিকের সাধারন সম্পাদক মো. জাহাঙ্গীর আলম, রাণীরবন্দর শান্তি সংঘ (রাশাস)-এর প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী পরিচালক মো. ফজলুর রহমান, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের যুগ্ম-সম্পাদক মো. ইব্রাহিম সরকার, তাতী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হাবিবুর রহমান প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.