বগুড়ার ধুনটে কাল বৈশাখী ঝড়ে লন্ডভন্ড বসত বাড়ি ঘর

মাসুম বিল্লাহ, বগুড়া জেলা প্রতিনিধিঃ
বগুড়ার ধুনট উপজেলার নিমগাছি ও কালের পাড়া ইউনিয়নে শনিবার (২১ই মে) ভোরবেলা আঘাত হানে কাল বৈশাখী ঝড় অশনি।  ঘুর্ণিঝড়ে লণ্ডভণ্ড হয়েছে নিমগাছি ইউনিয়ন ও কালের পাড়া ইউনিয়নে জনপদ ও দুই শতাধিক ঘরবাড়ি। 

উপড়ে পড়েছে গাছপালা,বিচ্ছিন্ন হয়েগেছে বৈদ্যতিক সংযোগ। তীব্র বৃষ্টি ও বর্জ্রপাতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে নানা জাতের খাদ্য শস্য। কৃষক শ্রমিক দিনমুজুর শ্রমজীবী মানুষের চোখে মুখে হতাশার ছাপ। একেবারে নিঃস্ব হয়েগেছে প্রায় একশত পরিবার। নূন্যতম মাথা গোঁজার ঠাইটুকুও নেই। শত শত বিঘা জমির ধান পানিতে হাবুডুবু খাচ্ছে ।                                           দেখা দিয়েছে শ্রমিক সংকট, এক মন ধান বিক্রি করেও মিলছেনা একজন শ্রমিকের মুজুরী।

নিমগাছি ইউনিয়নের বেড়ের বাড়ি, নিমগাছি, নান্দিয়ার পাড়া,সোনাহাটা,ধামাচামা, জয়সিংহ, ও কালের পাড়া ইউনিয়ন ইউনিয়নের হেউটনগর, রামনগর, ঈশ্বর ঘাট, পশ্চিম কান্তনগর, হাঁসখালি, আড়কাটিয়া, সুলতানহাটা,গ্রামে সরেজমিন ঘুরে দেখা যায় ঝড়ের প্রকপে ক্ষয়ক্ষতির পরিমান বর্ণনাতীত।           

বিশেষ করে ১নং নিমগাছি ইউনিয়নের বেড়ের বাড়ি ১নং ওয়ার্ডের বেড় পাড়া গ্রামের মৃত ইজার উদ্দিন স্ত্রী মোছাঃ আকলিমা বেওয়া বসতবাড়ির লন্ডভন্ড হয়ে পড়ায় তাহার ৫০ হাজার ক্ষতিসাধন হয়, একই গ্রামের মন্ডল পাড়ার মৃত মজি মন্ডল এর ছেলে মোঃ মাহফুজার মন্ডলের বসতবাড়ি ভেঙে ৪০হাজার টাকা ক্ষতি হয়েছে, বাবুর বাজার এলাকার মোঃ রমজান তালুকদার ছেলে মোঃ খোরশেদ আলম ওরফে দুলুর বসত বাড়ি ঘর ভেঙ্গে প্রায় ৫০ হাজার টাকার ক্ষতি হয়েছে, বেড়েরবাড়ি কেরানী পাড়া গ্রামের মৃত রইস উদ্দিন ছেলে মোঃ রফিকুল ইসলাম বসতবাড়ি দুই টি ঘর ভেঙ্গে ৮০ হাজার টাকা মত ক্ষতি হয়েছে, বেড়েরবাড়ি  গ্রামের আরও ক্ষতিগ্রস্তরা হলেন  মোঃ আব্দুল খালেক,মোঃ মঞ্জিল হোসেন,মোঃ জহুরুল ইসলাম, মোঃ ফুল বাবু,মোঃ শাহিনুর,মোঃ ফারুক আহমেদ, উওর নান্দিয়ার পাড়া গ্রামের মোঃ শামসুল হকের ছেলে আশিকুর রহমান মানিক এর দুই ঘর ঝড়ে ভেঙ্গে তাহার অনুমান এক লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে ও মৃত শমসের আলীর ছেলে নুরুল হক দুই ঘর ঝড়ে ভেঙ্গে  তাহার অনুমান ৯০ হাজার টাকা মত ক্ষতি হয়েছে, জয়শিং গ্রামের মৃত জহুরুল ইসলাম স্ত্রী মোছাঃ জায়দা দেওয়া থাকার একটি ঘর ভেঙ্গে ৪০হাজার টাকা ক্ষতি হয়েছে, নিমগাছি ইউনিয়ন সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ  সুজাউদ্দৌলা রিপন বলেন শনিবার ভোরবেলায় কালবৈশাখী ঝড়ে আমার ইউনিয়নে প্রায় একশতটি পরিবারের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে, তাদের মধ্যে কমপক্ষে ৬০ টি পরিবার খুব অসহায়, আমার সাধ্য অনুযায়ী আমি তাদের সার্বিক সহযোগিতা করে যাছি।                                                                        

২নং কালের পাড়া ইউনিয়নের ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাম হল হেউটনগর,রামনগর, পশ্চিম কান্তনগর, ঈশ্বর ঘাট, হাঁসখালি,আড়কাটিয়া, সুলতানহাটা, কালের পাড়া ইউনিয়নে সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ হারেজ উদ্দিন আকন্দের বলেন আমাদের ২নং কালের পাড়া ইউনিয়নে আজ ভোরবেলায় হঠাৎ করে কালবৈশাখী ঝড় এসে কমপক্ষে ৭০টি বসতবাড়ি ঘরের  ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, তাদের মধ্যে হল হেউটনগর বড় বাড়ি গ্রামের মোঃ তবিবর রহমানের ছেলে মোঃ কামরুজ্জামান, মৃত মোহাম্মদ আলী ছেলে মোঃ সায়দার আলী, হেউটনগর উওর পাড়া গ্রামের মৃত মেজাত প্রাং এর ছেলে মোঃ আব্দুর  রহিম, মোঃ রেজাউল করিম,। হেউটনগর দক্ষিণভাগ গ্রামের মোঃ আনিসুর রহমান, সরিফ উদ্দিন , সফিক প্রাং , মজাহার আলী, রামনগর  গ্রামের  শিপুন, নরুল ইসলাম,বাদশা, ইয়াছিন, পশ্চিম কান্তনগর গ্রামের মোজাম প্রাং, বাদশা, ঈশ্বর ঘাট গ্রামের মোঃ সাচ্চু ,বেল্লাল, আলম,লালমিয়া,আড়কাটিয়া গ্রামের মোঃ  আফজাল প্রাং এর ছেলে মোঃ হামিদ প্রাং, একুই গ্রামের মোঃ   শিগুল সহ আরো অনেকে ঝরে ঘরবাড়ি ভেঙ্গে ব্যাপক টাকার ক্ষতিসাধন হয়। প্রনয়ণ করা হচ্ছে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার গুলোর তালিকা। এবিষয়ে উপজেলা প্রশাসনের প্রতি জোর দাবি জানিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার গুলো।

Leave a Reply

Your email address will not be published.