ফরিদপুরে শুরু হচ্ছে পক্ষকালব্যাপী “জসিম পল্লীমেলা”

মাহবুব পিয়াল, ফরিদপুরঃ
চলছে শেষ সময়ের মাঠ সাজানের প্রস্তুতি। আগামীকাল রোববার (১৫ মে) বিকালে উদ্বোধন হতে চলেছে ঐতিহ্যবাহী “জসিম পল্লীমেলা”। ফরিদপুর শহরতলীর গোবিন্দপুর গ্রামে কবির বাড়ির সামনে প্রায় ৫ একর জমির জসিম উদ্যানে মেলা শুরু হতে যাচ্ছে। জেলা প্রশাসন ও জসিম ফাউন্ডেশন যৌথভাবে ১৫ দিনব্যাপী এ মেলার আয়োজন করেছে। বিকাল ৪টায় মেলার উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী।

স্থানীয় কাউন্সিলর খন্দকার শামসুল আরেফিন সাগর বলেন, মেলার মাঠ সাজানোর প্রস্তুতি শেষ পর্যায়ে। আমরা মেলার সার্বিক দেখভালের জন্য পুলিশ ও প্রশাসনের সহযোগীতায় একটি সেচ্ছাসেবী টিম গঠন করেছি। এটি ফরিদপুরের একটি প্রানের মেলা।

তিনি আরো জানান, ১৯৮৯ সালে প্রথম তিন দিন ব্যাপী এ মেলা শুরু হয়। ১৯৯১ সালে রাষ্ট্রপতি শাহাবুদ্দিন সাহেব মেলাতে আসলে তখন খুব আলোচনায় আসে মেলাটি। সে বছর ৭ দিনব্যাপী হয় মেলা। তারপর ৯২ সাল থেকে এক মাস ব্যাপী হতে থাকে মেলা। এর মধ্যে করোনা ও জসিম ফাউন্ডেশনের অপাগতায় বিগত চার বছর মেলার আয়োজন বন্ধ থাকলেও এ বছর ১৫ দিন ব্যাপী এ মেলা হচ্ছে।

তিনি বলেন, বন্ধ হয়ে যাওয়া মেলাটি স্থানীয়দের আবেদনের প্রেক্ষিতে আমি জেলা প্রশাসকের কাছে কয়েক হাজার লোক নিয়ে মেলা শুরু করার আবেদন করলে এবছর মেলা আয়োজনে সম্মত হন। প্রতি বছর জানুয়ারিতে কবির জন্মমাসে মাসে মেলা অনুষ্ঠিত হয়। এ বছর করোনা, রোজা ও ঈদ কে ঘিরে কয়েকবার মেলার সময় পিছিয়ে শুরু হতে যাচ্ছে মেলা।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সাধারণ) দীপক কুমার রায় জানান, ঐতিহ্যবাহী এই মেলা যথাযথভাবে আয়োজনের জন্য ইতোমধ্যে পূর্ণাঙ্গ প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

মেলায় হস্তশিল্প, গ্রামীণ মানুষের ব্যবহৃত নিত্যদিনের জিনিসপত্র, ঐতিহ্যবাহী ও কৃষি উপকরণ প্রদর্শনের লক্ষ্যে মোট ১৬১টি স্টল স্থাপন করা হয়েছে।

কুমার নদীর তীরে প্রতিদিন বিকেলে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে পল্লীগীতি, জারি, কবি গান, আবৃত্তি, ঐতিহ্যবাহী নৃত্য ও লোকগানের পরিবেশন করা হবে।

পুলিশ সুপার মো: আলিমুজ্জামান বলেন, মেলায় সার্বিক নিরাপত্তায় পুলিশ কন্ট্রোল রুম স্থাপন করা হয়েছে। এছাড়া ফায়ার সার্ভিস স্টেশনও থাকবে সার্বক্ষনিক নিরাপত্তায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.