গোসিংগা খেয়াঘাটে দ্বিগুণ ভাড়া আদায়ের অভিযোগ!

টি.আই সানি, গাজীপুর প্রতিনিধিঃ
গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার গোসিংগা খেয়াঘাটে নৌকা দিয়ে পারাপারে দ্বিগুণ ভাড়া আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন যাত্রীরা।

বাড়তি টাকা আদায়ের বিষয়ে জানতে চাইলে যাত্রীদের সাথে দুর্ব্যবহার ও হুমকি দিয়ে থাকেন বলে জানিয়েছেন অনেকেই। তাই বাড়তি ভাড়া নিলেও ইজারাদারদের ভয়ে কেউ প্রতিবাদ করতে সাহস পায়না যাত্রীরা।
কিছুদিন আগেও ৩/৫ টাকা করে নিয়েছে বলে জানিয়েছেন যাত্রীরা, হঠাৎ করে ঈদুল ফিতরের সময় থেকে ১০ টাকা করে আদায় করছে ইজারাদার। এভাবে প্রতিদিন কয়েক হাজার যাত্রীর কাছ থেকে বাড়তি ভাড়া আদায় করছে ইজারাদার কৃর্তৃপক্ষ।
কবির হোসেন নামে এক যাত্রী জানান, আমাদের ৫ জনের কাছ থেকে নদী পার হবার সময় ৫০ টাকা নিয়েছে। একবার গেলে ৫০ টাকা কেন দিতে হবে জিজ্ঞেস করলে আমার সাথে খারাপ আচরণ করে ইজারাদারের লোকজন ।
জোসনা খাতুন, রমজান আলী, নামের কয়েক যাত্রীরা অবিযোগ করে বলেন, কিছুদিন আগেও ৫ টাকা দিয়ে নদী পার হয়েছি। এখন যেতে ১০ টাকা আসতে ১০ টাকা মোট ২০ টাকা দিতে হচ্ছে। জিজ্ঞেস করলে বলে,১০ টাকা করেই দিতে হবে। এর একটা বিহিত হওয়া দরকার।

আরিফ নামের একাদশ শ্রেণীর ছাত্র জানান, তার কাছ থেকেও ১০ টাকা নিয়েছে। টাকা না দিলে খারাপ আচরণ করে। এভাবে মোটরসাইকেল আরোহীদের কাছ থেকেও ২০ টাকা ৩০ টাকা আদায় করে থাকে। ঘাটের রাস্তা ভালো না থাকায় মোটরসাইকেল নিয়ে পারাপারের সময় অনেকেই অনেক বিড়ম্বনা ও ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন অনেকেই।

স্থানীয়রা জানান, মোটরসাইকেল নিয়ে নদী পারাপারের সময় নৌকা থেকে উপড়ে উঠতে এবং উপড় থেকে নৌকায় উঠার সময় কাদা রাস্তায় মোটরসাইকেল নিয়ে পড়ে যেতেও দেখা অনেক সময়। ইঞ্জিন চালিত নৌকা দিয়ে নদী পার হতে ১ মিনিটেরও কম সময় লাগে। এত ছোট নদী পার হবার জন্য ১০ টাকা ভাড়া বেশি বলে অনেকেরই দাবী। এলাকাবাসী ও যাত্রীরা ভাড়া নির্ধারণ করে তালিকা টানানো ও খেয়াঘাটের রাস্তা সংস্কারের দাবী জানিয়েছেন।

ঘাটে থাকা টাকা আদায়কারী বনি আমিন নামে একজন বলেন, আমি ইজারাদারদের নির্দেশে  শুধু টাকা আদায় করি। এ ঘাটের ইজারাদার অনেকজন, মুছা মোড়ল নামের একজন পরিচালনা করেন। তিনি বিস্তারিত বলতে পারবেন।

ইজারাদার মো.মুছা মোড়লের সাথে মোবাইল ফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, গত বারের চেয়ে বেশি টাকা দিয়ে এবার ঘাট ইজারা নেয়া হয়েছে, যাত্রীও কম তাই ১০ টাকা করে নেয়া হচ্ছে। সব জায়গায়ই ১০ টাকা ভাড়া বলেও দাবি করেন তিনি। কত টাকা ভাড়া আদায়ের নির্দেশনা রয়েছে জিজ্ঞেস করলে তিনি জানান, কত টাকা আদায় করবো তার কোন নির্দেশনা আমরা পাইনি।

গোসিংগা ইউনিয়ন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ফারুক হোসেন জানান, বিষয়টি আমি মাত্র শুনলাম, খোঁজ খবর নিয়ে, সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শ্রীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার তরিকুল ইসলাম জানান, বিষয়টি খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.