কুয়াকাটা থেকে যৌনকর্মী সহ হোটেল মালিক আটক

জাহিদুল ইসলাম জাহিদ, কুয়াকাটা প্রতিনিধি:
পটুয়াখালীর কুয়াকাটার মহিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খোন্দকার মোঃ আবুল খায়ের নির্দেশে থানা পুলিশের অভিযানে কুয়াকাটার এ.আর খান নামে একটি আবাসিক হোটেল থেকে হোটেলের ভাড়াকৃত মালিক ও পতিতা সহ ৪ জনকে আটক করা হয়েছে।

সোমবার (৯ মে) রাত সাড়ে ৮ টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মহিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খোন্দকার আবুল খায়ের এস আই মান্নান, সাইদুল, রাসেল ও এ এস আই জাহাঙ্গীরসহ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে কুয়াকাটার এ.আর খান আবাসিক হোটেলে অভিযান পরিচালনা করেন।

এসময় ৫ বছরের জন্য ওই হোটেলের চুক্তিবদ্ধ মালিক বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের ২ নং ওয়ার্ডের কাউনিয়ার মৃত হাতেম আলী’র ছেলে ফজলুর করিম ফারুক,ও খুলনার দীঘলিয়া ইউনিয়নের দেয়ারা গ্রামের আলাউদ্দিন সর্দারের ছেলে মাহমুদ ফরাজীসহ বরগুনার ২ যুবতীকে আটক করা হয়।

জানা গেছে, আবাসিকের আড়ালে দীর্ঘদিন ধরে পতিতা ব্যবসা করে আসছিলেন এ.আর খান হোটেলের চুক্তিবদ্ধ মালিক ফজলুর করিম ফারুক। পরে মহিপুর থানা পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ওই মালিক, ১ যুবক ও ২ পতিতাসহ মোট ৪ জনকে আটক করে তারা। 

নাম গোপন রাখা স্থানীয়রা জানান, আমরা অনেকবার তাকে সতর্ক করেছি, কিন্তু সে সতর্ক মানেনি। আজ উচিত শিক্ষা হয়েছে তার, কোথায় আছে লোভে পাপ, পাপে মৃত্যু। এবং তারা আরো জানান, অনেকদিন যাবত পতিতা ব্যবসা করে আসছে  চুক্তিপত্র মালিক ফজলুর করিম ফারুক, জড়িত রয়েছে দীর্ঘদিন ধরে। তার নির্দেশেই নাকি রমরমা পতিতা ব্যবসা চলছে তার আবাসিক হোটেলে।

এ বিষয় মহিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খোন্দকার মোঃ আবুল খায়ের বলেন, ‘আটককৃতদের জেল-হাজতে প্রেরণ করা হবে। এছাড়া কুয়াকাটাকে মাদক ও পতিতামুক্ত করতে বিভিন্ন হোটেলে অভিযান পরিচালনা করা হবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.