শরীয়তপুরে ভুল চিকিৎসায় প্রসুতির মৃত্যুর অভিযোগ

মোঃ মিজানুর রহমান পাহাড়, শরীয়তপুর প্রতিনিধি:
ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে জেলার নড়িয়ার ঘড়িষার বেসরকারি মা ও শিশু ডায়াবেটিক হাসপাতালের বিরুদ্ধে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে স্থানীয় লোকজন হাসপাতালটি ব্যাপক ভাংচুর করে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। স্থানীয়রা জানিয়েছেন এর আগেও এ হাসপাতালের বিরুদ্ধে ব্যাপক অভিযোগ রয়েছে।

শুক্রবার (৬ মে) দুপুর ১টার দিকে জেলার নড়িয়া উপজেলার ঘড়িসারে মা-শিশু ও ডায়াবেটিক হাসপাতালে এই ঘটনা ঘটে। নিহত মাহিনুর বেগম নড়িয়া উপজেলার ডিঙ্গামানিক ইউনিয়নের পন্ডিতসার গ্রামের ইতালি প্রবাসী উজ্জল মির মালতের স্ত্রী।

রোগীর স্বজন এবং স্থানীয়রা জানান, মাহিনুরের প্রসব বেদনা উঠলে তাকে ঘড়িষার মা ও শিশু ডায়াবেটিক হাসপাতালে ভর্তি করি, এ সময় রোগীর সিজার করলে একটি কন্যা সন্তান হয়। তবে সিজারের সময় রোগীর নাড়ী ভুল করে ডাঃ মনোয়ার হোসেন কেটে ফেলে, পরে বিষয়টি গোপন করে বলে রোগীর অবস্থা খারাপ দ্রুত তাকে ঢাকা নিয়ে যান।এতে আমাদের সন্দেহ হলে আমরা সেখানে চিল্লাফাল্লা করি তবে তাৎক্ষণিক তাকে আমরা শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে ঐখানে প্রবেশ করার আগেই একজন ডাক্তার তাকে দেখে মৃত ঘোষণা করেন। অর্থাৎ রোগী কে এখানেই ভুল চিকিৎসার মাধ্যমে মেরে ফেলা হয়েছে বলে জানান স্বজনরা।

তবে এ ব্যাপারে কথা বলার জন্য ঘড়িষার মা ও শিশু ডায়াবেটিক হাসপাতালের ডাঃ মনোয়ার হোসেন এবং মালিক পক্ষের কাউকে পাওয়া যায় নি।

নড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবীর হোসেন বলেন, ঘড়িসারে মা-শিশু ও ডায়াবেটিক হাসপাতালের ডা. কহিনুর বেগম সিজার করেছেন। পরে অবস্থার অনবতি হলে রোগীকে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে রেফার্ড করেন। পথে রোগী মারা যায়। তবে উত্তেজিত স্বজনরা হাসপাতাল ভাঙচুর করেছে। ঘটনাস্থলে আমি গিয়ে নিহতের স্বজনদের সঙ্গে কথা বলেছি। যদি স্বজনরা অভিযোগ করে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.