করমজলে বিলুপ্ত প্রজাতির কচ্ছপ বাটাগুর বাসকার ৩৩টি বাচ্চা ফুটেছে

শেখ সোহেল, বাগেরহাট জেলা প্রতিনিধি
সুন্দরবনের বিলুপ্ত প্রজাতির কচ্ছপ বাটাগুর বাসকার ৩৩টি বাচ্চা ফুটেছে। শনিবার (০৭ মে) সকালে ডিম থেকে বাচ্চাগুলো ফুটে বের হয়। এর আগে ৬ মার্চ সকালে করমজলের কচ্ছপ লালন-পালন কেন্দ্রের পুকুর পাড়ে একটি কচ্ছপ ৩৪টি ডিম দেয়। ৩৪টি ডিমের মধ্য থেকে এবার ৩৩টি বাচ্চা ফুটেছে।

এই নিয়ে করমজল বন্য প্রাণী প্রজনন কেন্দ্রে কয়েক ধফায় ২৭৪টি বাচ্চা ফুটলো। বর্তমানে এই কেন্দ্রে বিভাগে বয়সী মোট ৩৮৭টি কচ্ছপ রয়েছে।
পূর্ব সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জের করমজল বন্যপ্রাণী প্রজনন কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আজাদ কবির বলেন যে, করমজল বন্যপ্রাণী প্রজনন কেন্দ্রের পুকুর পাড়ের স্যান্ডবীচে একটিনবাটাগুরবাস্কা প্রজাতির কচ্ছপ গত ৬ মার্চ ৩৪টি ডিম দেয়। এরপর ৭ মে শনিবার ভোর থেকে ডিম হতে বাচ্চা ফুটে বের হতে শুরু করে। ভোর থেকে সকাল ৯টা পর্যন্ত একে একে ৩৩টি বাচ্চা ফুটে বের হয়। একটি ডিম নষ্ট হয়ে গেছে। ৯টার পর স্যান্ডবীচ থেকে বাচ্চাগুলোকে তুলে ওই কেন্দ্রের প্যানে রাখা হয়েছে। প্যানে রেখে লালনপালনের পর ছেড়ে দেয়া হবে কেন্দ্রের বড় পুকুরে।
আজাদ কবির বলেন, বিলুপ্ত প্রায় প্রজাতির এই কচ্ছপ আমরা খুব গুরুত্বের সাথে লালন পালন করে আসছি। বংশ বৃদ্ধির জন্য আমরা সার্বক্ষনিক নজরে রাখছি। এর আগে আমাদের এখানে কচ্ছপ ডিম দিয়েছে। সেই ডিম থেকে বাচ্চাও ফুটেছে।

উল্লেখ, ২০০০ সালের দিকে বন্যপ্রানী গবেষকরা মনে করেণ পৃথিবীতে আর বাটাগুর বাসকার কোন অস্তিত্ত্ব নেই। পরে ২০০৮ সালে গবেষকরা প্রকৃতিতে বাটাগুর বাসকা আছে কিনা তা খুজতে শুরু করেন। খুজতে খুজতে নোয়াখালি ও বরিশালের বিভিন্ন জলাশয়ে ৮টি বাটাগুর বাসকা পাওয়া যায়। যার মধ্যে ৪টি পুরুষ ও ৪টি স্ত্রী। প্রজননের জন্য গাজীপুরে নিয়ে যাওয়া হয় কচ্ছপগুলো কে।বনবিভাগের দায়িত্ব প্রাপ্ত লোকেরা নিবিড়ভাবে লালন পালন ও প্রজননের চেষ্টা করে বাটাগুর বাসকা গুলোকে। তারপরও তেমন সাফল্য পাওয়া যায় নি।তবে কয়েক বছরে গাজিপুরে প্রায় ৯৪টি বাচ্চা দিয়েছিল ৮টি মা কচ্ছপ। সেখানে ভাল সাড়া পাওয়ায় ২০১৪ সালে মূল ৮টি বাটাগুর বাসকা ও তাদের জন্ম দেয়া ৯৪টি ছানাসহ করমজল কৃত্রিম প্রজনন কেন্দ্রে নিয়ে আসা হয়।

পরবর্তীতে ২০১৭ সালে দুটি কচ্ছপের ৬৩টি টি ডিম থেকে ৫৭ টি বাচ্চা হয়। ২০১৮ সালে দুটি কচ্ছপের ৪৬ ডিম থেকে ২১ টি বাচ্চা পাওয়া যায়। ২০১৯ সালে একটি কচ্ছপের ৩২ টি ডিম থেকে ৩২ টি বাচ্চা পাওয়া যায়।বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ১০ কচ্ছপ সুন্দরবনে অবমুক্ত করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.