আশুগঞ্জে ২২দিন পর ৯৯৯ ফোন পেয়ে চাতাল শ্রমিকের দুই বাচ্চা উদ্ধার

আকাশ সরকার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রতিনিধিঃ
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে ২২দিন ঘরে বন্দি থাকার পর ৯৯৯ ফোন পেয়ে পুলিশ গিয়ে দুই বাচ্চাকে উদ্ধার করেছে।বাচ্চা দুটি হল সোহাগী(৭) এবং লালু আহমেদ (৪)।এঘটনায় আশুগঞ্জে আজ আলোচনা-সমালোচনার ঝড় বইছে।

পুলিশ এবং বাচ্চাদের বাবা ইব্রাহিম জানান,ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জের সোহাগপুর হাজী আহাম্মদ আলী অটো রাইছমিলে আমার স্ত্রী মোছাম্মত ফাতেমা বেগম(৩০) শ্রমিকের কাজ করত।গত মার্চের ১৮ তারখি আমার স্ত্রী সন্তান প্রসবজনিত কারণে অসুস্থ হলে তাকে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসাপাতালে ভর্তি করায়।

এসময় আমার দুই শিশু সন্তানকে অটো রাইছমিলের সর্দারের কাছে রেখে যায় এবং তাকে(জসিম)কে বলি যে,আমার স্ত্রী বেশী অসুস্থ আমি আসতে পারব না।তুমি আমার সন্তানদেরকে এক/দুইদিন পর আমার কাছে নিয়ে আসব।সে পরেবর্তীতে আমার সন্তানদের নিয়ে আসতে বললে রাইচমিলের সর্দার জসিম আমাকে ফোনে বলেযে,

হাজী আহাম্মদ আলী অটো রাইছমিলের পরিচালক হামিদ মিয়া,নুরুরন্নবী এবং সিদ্দিক মিয়া বলছে যে,তোমার কাছে যে,দাদনের টাকা পাওনা আছে সে টাকা না দিলে তোমার সন্তানদের ফেরত দিবে না। আমি ফোনে সর্দার এবং মালিককে বলি যে,যে টাকা আপনারা পাবেন এই টাকা পরিশোধের জন্য আমাকে এক/দুইমাস সময় দেন আমি টাকা দিয়ে দেব এবং আমার সন্তাদের ফেরত দেন।

অনেক অনুনয় বিনয় করলেও তারা আমার সন্তানদের ফেরত দেয়নি। শুধু তাতেই ক্ষান্ত হয়নি তারা আমার অবুঝ দুই শিশুকে একটি কক্ষে আটকে রেখে বাহির থেকে তালা লাগিয়ে দেয়।কোন উপায় না দেখে শুক্রবার দুপুরে পুলিশ হাজী আহাম্মদ আলী অটােরাইছমিল থেকে কক্ষে আটকানো অবস্থায় উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

হাজী আহাম্মদ আলী অটো রাইছমিলে পরিচালক নুরুজ্জামান এ ব্যাপারে আমরা কোন বাচ্চাতে আটকে রাখিনি। সোহাগী(৭) এবং লালু আহমেদের বাবা ইব্রাহিমের কাছে আমরা ৯০ হাজার টাকা পাই।সে টাকা না দিয়ে সিলেটেঁ পালিয়ে গেছে। টাকা ফেরত দেওয়ার কথা বলঅই সে বাচ্চাকে আটকের অভিযোগ করে।
সোহাগী(৭) এবং লালু আহমেদের বাবা ইব্রাহিম বলেন,আমার বাচ্চাদের যারা কক্ষে বন্দি করে রেখেছে আমি প্রশাসনের কাছে তাদের দৃষ্টনাতমুলক বিচার চাই।

এ বিষয়ে আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো.আজাদ রহমান বলেন,৯৯৯ এ ফোন পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠায়।পুলিশ গিয়ে বাচ্চাদের কক্ষে আটকানো অবস্থায় পায় এবং কক্ষে থেকে উদ্ধার করে আশুগঞ্জ থানায় নিয়ে আসে। তবে এ বিষয়ে আমি কোন অভিযোগ পায়নি।অভিযোগ পেলে তদন্ত করে দোষীদের বিরোদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.