বগুড়ার শেরপুরে বুড়িমারি খালের বেইলি ব্রিজ হুমকির মুখে, দুর্ঘটনার আশংকা

মাসুম বিল্লাহ, বগুড়া প্রতিনিধিঃ
বগুড়ার শেরপুর উপজেলার খানপুর ইউনিয়ন একটি জনগুরুত্বপূর্ণ ইউনিয়ন। এর দু-পাশে রয়েছে সুঘাট ও মির্জাপুর ইউনিয়ন। খানপুর ইউনিয়নকে দুই ভাগে ভাগ করে দিয়েছে বুড়িমারি নামের একটি খাল। এই খালের দুপাশের সংযোগ সড়কে রয়েছে একটি বেইলি ব্রিজ। আর এই ব্রিজটি এখন হুমকির মুখে। এতে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে। 

সরজমিনে গিয়ে জানা যায়, এই ব্রিজ দিয়ে প্রতিদিন শত শত ছোট বড় যান চলাচল করে। এলাকার মানুষের চলাচলের একমাত্র ব্রিজ এটি। এই ব্রিজ ছাড়া বিকল্প কোন যাতায়াত ব্যবস্থা না থাকায় এ অঞ্চলের জন্য অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ এটি। ১৯৮৮ সালে হুসেইন মোহাম্মাদ এরশাদ সরকারের আমলে আহসান হাবিব আম্বিয়া যখন প্রথম চেয়ারম্যান হয় তখন প্রায় ১০ লাখ টাকা ব্যায়ে এলজিইডি‘র মাধ্যমে তোজাম্মেল হক নামের এক ঠিকাদার এই ব্রিজটি নির্মান করেন। বর্তমানে ব্রিজের দুই পাড় ভেঙ্গে যাওয়ায় জীবনের ঝুকি নিয়ে মানুষ চলাচল করছে। এছাড়াও ব্রিজের বিভিন্ন অংশ ধসে ধসে পড়ছে। বর্তমানে বালু খেকোরা প্রতিদিন শত শত বালু ভর্তি ট্রাক ব্রিজের উপর দিয়ে নিয়ে গিয়ে বিভিন্ন জায়গায় বিক্রি করছে। এতে যেকোন সময় ব্রিজটি ভেঙে হাজার হাজার মানুষের যাতায়াত ব্যবস্থা বন্ধ হয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন এলাকার সচেতন মহল। 

এ ব্যাপারে খানপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আহসান হাবিব আম্বিয়া জানান, ১৯৮৮ সালে আমি যখন প্রথম চেয়ারম্যান নির্বাচিত হই সেই বছরেই চেষ্টা করে এই ব্রিজটি নির্মান করিয়েছিলাম। ব্রিজটি দীর্ঘদিনের পুরোনো। এই অঞ্চলের মানুষের শহরে যাওয়ার জন্য এই ব্রিজটিই অন্যতম মাধ্যম। বেইলি ব্রিজটি এখন অনেক ঝুঁকিপূর্ণ। দ্রুত সংস্কারের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছি। 

শেরপুর উপজেলা প্রকৌশলী লিয়াকত আলী বলেন, বুড়িমারি খালের উপর নতুন ব্রিজ নির্মাণের জন্য সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে। টেন্ডার হলেই কাজ শুরু হবে বলে আশা করছি। 

এ ব্যাপারে শেরপুর-ধুনট নির্বাচনী এলাকার সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦ হাবিবর রহমান বলেন, খানপুর ইউনিয়নের কয়েরখালী ব্রিজ নির্মানের সকল কাজ সম্পন্ন হয়েছে। আশা করি এ বছরই নতুন ব্রিজের কাজ শুরু হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.