রমজান আসার আগেই গাজীপুরে ব্যস্ত সময় পার করছে মুড়ি ভাজার কারিগররা

টি.আই সানি,গাজীপুর প্রতিনিধিঃ
পবিত্র মাহে রমজান মাস আসার আর কিছু দিন বাকী,এরই মধ্যে মুড়ি ভাজার কারিগররা ব্যস্ত সময় পার করছেন মুড়ি বাজার কাছে। অনেকেই রুচির পরিবর্তনে হাতে ভাজা মুড়ির প্রতি আকৃষ্ট হন। আর তাদের চাহিদা মেটাতে গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার বগারপুর, বহেরাতলী, পাশর্^বর্তী শ্রীপুর উপজেলার বারতোপা, জয়নাতলী গ্রামে সারা বছরই হাতে মুড়ি ভাজা হয়। গাজীপুর জেলার চাহিতা মিটিয়ে এই হাতে ভাজা মুড়ি দেশের বিভিন্ন জেলাতের রপ্তানী করা হয়। সপ্তাহীক হাট বাজারের দিন সোমবার, ফলবাড়িয়া বাজারে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত চলে বেঁচা কেনা।

গ্রামের প্রায় ৩০টি পরিবার হাতে মুড়ি ভেজে জীবিকা নির্বাহ করেন। প্রতি বছর হাজার হাজার মণ ধানের মুড়ি ভাজা হয় এসব গ্রামে। রমজান মাসে এর চাহিদা বেশি থাকে। বিচ্ছিন্নভাবে আরও কয়েকটি গ্রামে বাণিজ্যিকভাবে হাতে মুড়ি ভাজা হয়।

৫ মণ ধানের মুড়ি ভেজে ৫ জন শ্রমিক তিন থেকে সাড়ে তিন হাজার টাকা মুজুরী পান। মুড়ির বেপারীরা ধান কিনে পরিবারের মধ্যে সরবরাহ করেন। পরে তারা ধান শুকানো, সেদ্ধ করা, ভাঙানো এবং সবশেষ মুড়ি তৈরীর কাজটি করেন। মুড়িগুলো স্থানীয় বাজারে সরবরাহ করা হয় না। এগেুলো রাজধানীর গাবতলী, আমিনবাজার, মিরপুর, কারওয়ানবাজার এলাকায় সরবরাহ করা হয়।

বারতোপা গ্রামের বানিছ সিকদার জানান, এলাকার মধ্যস্বত্বভোগী পাইকারেরা প্রতিবারে তাকে ১৫০ মণ ধান সরবরাহ করেন। আবহাওয়া ভাল থাকলে রোদে শোকানো, সেদ্ধ করাসহ ১০ মণ ধান প্রক্রিয়া করতে তাদের এক মাস সময় লেগে যায়। পরে সর্বোচ্চ দুই দিনে তারা মুড়ি ভাজতে পারেন।

কালিয়াকৈরের বগারপুর গ্রামের মৃত সাহেব আলীর ছেলে উদ্যোক্তা বিল্লাল হোসেন জানান, ইরি ও শাইল আবাদের সময় নাটোর ও বরিশাল থেকে বেপারীরা তাকে ধান সরবরাহ করেন। প্রতিবারে ২০ মণ ধান সরবরাহ করেন। আবহাওয়া ভাল থাকলে তারা কয়েকজন উদ্যোক্তা একত্রে সমন্বয় করে ১৫ দিনের মধ্যেই মুড়ি সরবরাহ করতে পারেন। লোবল নিয়ে প্রতি বছর ১ হাজার মণ ধানের মুড়ি ভাজতে পারেন।

তিনি জানান, বাড়ি থেকে তিনি কিছু মুড়ি পাইকারী ও খুচরা বিক্রি করেন। পাইকারী কেজি ৮৫ ও খুচরা কেজি ১’শ টাকা বিক্রি করেন। ভালো মানের ধান হলে মুল্য বেশি হয়ে থাকে। ৪০ কেজি ধানে ২৩/২৪ কেজি মুড়ি হয়। একেক সময় একে মূল্যের ধান সরবরাহ করা হয়। ধানের মূল্য সাধারণত ১৪’শ টাকা মণ হয়ে থাকে। ভাল মানের ধানের মূল্য ১৭/১৮’শ টাকা মণ হয়ে থাকে। প্রতিবারে আড়াই’শ কেজি মুড়ি ডেলিভারী করতে পারেন।

মুড়ি শ্রমিক মৃত কেরামত আলীর স্ত্রী রূপজান (৬৫) বলেন, যে শ্রমিক ভাজা চাউল গরম বালিতে মেশান তার মুজুরী ৫’শ টাকা। অন্যান্য সহযোগীদের ৪’শ টাকা করে দেওয়া হয়। মুড়ি শ্রমিক শাহিদা খাতুন (৩৮) জানান, উদ্যোক্তা আর শ্রমিকদের মধ্যে সমন্বয় আছে। আমরা কষ্ট করে প্রতি সাড়ে ৫’শ মণের বিপরীতে ওই পরিমাণ পারিশ্রমিক পাই। এতে দেখা যায় ধান ভাঙানো বাদে একেকজন গড়ে ৫’শ টাকা মজুরী পান। যা উদ্যোক্তাসহ ৫ জন শ্রমিকের মধ্যে ভাগাভাগি হয়। শ্রমিক বেশি হলে মজুরী কমে আসে এবং সময় কম লাগে। নিজেরা ধান কিনে মুড়ি ভাজতে পারলে ভালো লাভ পাওয়া যেত। কিন্তু মূলধন না থাকায় এলাকার অর্ডার সরবরাহকারী ও বেপারীদের ওপর নির্ভর করতে হয়। ভোক্তা পর্যন্ত মুড়ি পৌঁছাতে মাঝখানে চারজনের হাত বদল হয়।

একই গ্রামের মৃত সাইজ উদ্দিনের স্ত্রী উদ্যোক্তা কমলা খাতুন (৪৫)বলেন, বেপরীরা ধান দেয়। প্রথম দিন গরম পনি করে ফেলতে হয়। তারপর সেদ্ধ , শোকানো ও ভাঙাতে হয়। আমরা ৩ হাজার, ৩২’শ টাকা পারিশ্রমিক পাই। ১১ মণ ধানের মুড়িতে ১০ কেজি লবণ ব্যবহার করি। রমজানের ১৫দিন আগে থেকে ১৫ রমজান পর্যন্ত মুড়ি বেশি আর্ডার পাওয়া যায়। তখন চাহিদা বেশি থাকে।

তিনি বলেন, আমাদের নিজস্ব কোনো চালান নাই, মুড়ি ভাজতে ভাল লাভ পাওয়া যায় না। এলাকায় সুলভ মুল্যে লাকড়ী পাওয়া যায়। তাছাড়া আমরা মুড়ি ভাজার কাজটা ভাল জানি। তাই এ পেশায় লেগে আছি। অনেকে পেশা ছেড়ে দিয়ে কল কাখানায় চাকরী-বাকরী করছে। সরকার যদি কিছু সাহায্য করত তাহলে নিজেরাই ধান কিনে মুড়ি ভেজে বাজারজাত করতে পারতাম। এখন ধানের দাম বেশি। ধানের দাম কম হলে লাভ ভাল হতো।

একই গ্রামের ফজলুল হক বলেন, হাতে তৈরী মুড়ি দামে বেশি হলেও স্বাদ ভালো। জৈনাতলী গ্রামের আব্দুস ছামাদের ছেলে জাকির হোসেন বলেন, আমাদের চোখের সামনেই তারা মুড়ি ভাজেন। মুড়িতে ইউরিয়া সার বা বিষাক্ত কোনো কিছু মেশান না। স্থানীয় দোকানগুলোতে হাতে ভাজা মুড়ি কিনতে পাওয়া যায় না। তাই বাড়ি থেকেই খেতে খুব সুস্বাদু হাতে ভাজা মুড়ি কিনে নিয়ে যাই। দাম প্রতি কেজি খুচরা ১১০ টাকা থেকে ১২০ টাকা পর্যন্ত থাকে।

জৈনাতলী গ্রামের মুদি ব্যবসায়ী আবুল হাসান বলেন, দাম বেশি থাকায় এলাকায় হাতে ভাজা মুড়ির চাহিদা কম। এগুলো সাধারণত রাজধানীতে সরবরাহ করা হয়। তাই আমরাও হাতে ভাজা মুড়ি বিক্রি করি না। যাদের প্রয়োজন হয় তারা উদ্যোক্তাদের কাছ থেকে পাইকারী ও খুচরা মুল্যে কয় করেন। যন্ত্র দিয়ে তৈরী মুড়ি ৭০ টাকা কেজি বিকিত্র করি।

এ বিষয়ে একটি বাড়ী একটি খামার প্রকল্পের শ্রীপুর “পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকে”র শাখা ব্যবস্থাপক শাহীনুর নাহার মৌরী বলেন, তৃণমূলের উদ্যোক্তাদের ঋণ দেওয়া হয়। তবে এককভাবে সমিতির বাইরে কাউকে ঋণ দেওয়া হয় না। ঋণ গ্রহীতাদের ৪০ জনের একটি সমিতির আওতাভুক্ত হতে হয়। এর মধ্যে নারী ও পুরুষ সদস্যের অনুপাত হতে হয় অর্ধেক। কোনো কোনো ক্ষেত্রে কাঙ্খিত নারী সদস্য পাওয়া না গেলে সেখানে পুরুষ সদস্য দিয়েই সমিতি গঠণ করা হয়। এ অর্থ বছরে সমিতি গঠণের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হয়ে গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.