পবিপ্রবিতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন পালিত

আবু হাসনাত তুহিন, পবিপ্রবি:
পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (পবিপ্রবি) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের জন্মদিন যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়েছে। জাতির জনকের জন্মদিন উপলক্ষ্যে বিভিন্ন ধরনের কর্মসূচি পালন করা হয়। কর্মসূচিগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য –

সকাল ৯টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাধীনতা চত্বরে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. স্বদেশ চন্দ্র সামন্ত জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন। সকাল সোয়া ৯টায় স্বাধীনতা চত্বর ও একাডেমিক ভবনে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ও ম্যুরালে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। শুরুতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য। এরপর পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর, বিভিন্ন হল শাখার নেতৃবৃন্দ, বঙ্গবন্ধু পরিষদ, বঙ্গবন্ধু সমন্বয় পরিষদ, আলাপ, অফিসার্স এসোসিয়েশন, রোভার ও গার্ল ইন রোভার স্কাউট ও অন্যান্যরা। পবিপ্রবি শাখা ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে সকাল সাড়ে ৯টায় আনন্দ শোভাযাত্রা বের করা হয়। এরপর সকাল ৯ঃ৪০ মিনিটে একাডেমিক ভবনের সম্মুখে বঙ্গবন্ধুর দেয়ালিকা উন্মোচন, ৯ঃ৫০ মিনিটে কেক কাটা ও ১০ঃ১৫ মিনিটে কৃষি অনুষদের কনফারেন্স কক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

আলোচনা সভাটি অনুষ্ঠিত হয় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষ্যে। উক্ত সভায় উপস্থিত ছিলেন-
প্রধান অতিথি উপাচার্য ড. স্বদেশ চন্দ্র সামন্ত, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন কমিটির সভাপতি প্রফেসর মোহাম্মদ আলী, প্রক্টর প্রফেসর ড. সন্তোষ কুমার বসু, ডিন কাউন্সিলের কনভেনর, বিভিন্ন অনুষদের ডিন, অন্যান্য শিক্ষকবৃন্দ, কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শিক্ষার্থীবৃন্দ।

উপাচার্য তার বক্তব্যে বলেন- বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছাড়া বাংলাদেশের জন্ম হত না। তিনি হলেন মানবদরদী ও উদার। মহাত্মা গান্ধী, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, কবি নজরুল ও কবিগুরু রবীন্দ্রনাথের জীবনাদর্শ শেখ মুজিবের মধ্যে ছিলো যার ফলে তিনি হাজার হাজার মানুষকে একত্রিত করতে পেরেছিলেন এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতার মহানায়ক ছিলেন।

সভাপতি প্রফেসর মোহাম্মদ আলী বলেন, বঙ্গবন্ধু ইতিহাস হলে অন্যান্য নেতারা ছিলেন ইতিহাসের এক পাতা মাত্র। তিনি আরও বলেন, আমাদের সঠিক ইতিহাস জানতে হবে এবং মুজিব আদর্শের প্রতিফলন করতে হবে। শিশু-কিশোরদের মুজিব আদর্শে গড়ে তুলতে হবে। তবেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিশ্বদরবারে এক অনন্য হিসেবে স্থান করে নিবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.