কুড়িগ্রামে আদালতের নির্দেশ অমান্য করে ইটভাটার নাম পরিবর্তন করে ভাটা পরিচালনা

মোঃ রফিকুল ইসলাম, কুড়িগ্রাম:
কুড়িগ্রাম জেলা সদরের কাঁঠালবাড়ী ইউনিয়নস্থ জোত গোবর্দ্ধন এলাকায় যৌথ অংশিদারিত্বে পরিচালিত ন্যাশনাল ব্রিকস ম্যানুফেকচার (এন.বি.এম) ভাটাটির নাম পরিবর্তন করে মেসার্স এম.টি.আর ব্রিকস নামে একক ভাবে পরিচালিত হচ্ছে। বিগত ১২/১১/২০১২ইং তারিখে আইভি-৬/১২ নং চুক্তিপত্র দলিল সম্পাদন ও নিবন্ধন করে যৌথ অংশিদারিত্বের ভিত্তিতে ইটভাটাটি গড়ে ওঠে। যৌথ কারবারের সমস্ত হিসাব নিকাশ রাখার জন্য একজন ম্যানেজার নিয়োগ দেওয়া হয়। কাঁঠালবাড়ী ইউনিয়নস্থ জোত গোবর্ন্ধনে এন.বি.এম নামক দুইটি ইটভাটা প্রতিষ্ঠার পর ইটভাটা ব্যবসা পরিচালনা করা অবস্থায় অংশিদারী ব্যবসার অংশিদার মোঃ মাইদুল ইসলামের ব্যক্তিগত কারণে নগদ অর্থের প্রয়োজন হইলে বিগত ২১/০৯/২০১৬ইং তারিখ ৫২১/২০১৬ নং এফিডেভিট মূলে উক্ত অংশিদারী ব্যবসায়ে তাহার অংশিদারিত্ব মোঃ আবু আহসান সিদ্দিক, মতিয়ার রহমান ও বেগম খালেদা ইয়াছমিন বরাবর হস্তান্তর করেন।

পরবর্তীতে মতিয়ার রহমান বিগত ২৫/০৯/১৭ইং তারিখ ৫১০১ নং রেজিস্ট্রিকৃত অংশিদারিত্বের অংশ বিক্রয় পত্র দলিল মূলে তাহার অংশিদারিত্ব আবু আহসান সিদ্দিক বরাবর হস্তান্তর করেন। আবু আহসান সিদ্দিক কতক দলিল ও এফিডেভিটমুলে কতক অংশিদারিত্ব খরিদ করিলেও তিনি উক্ত অংশিদারী ব্যবসার সমূদয় অংশিদারিত্ব খরিদ করেন নাই। তথাপীয় তিনি নিজেকে উক্ত ইটভাটার একক মালিক হিসেবে উল্লেখ করিয়া ইটভাটায় অবস্থিত অফিস, ইট প্রস্তুতের সরঞ্জামাদি, চিমনি, ক্লিন সহ স্থাবর অবস্থাবর যাবতীয় সম্পত্তির স্বত্ত্ব, স্বার্থ ও অংশিদারিত্ব বিগত ২১/০৪/২০১৯ইং তারিখ ৬৭৩/২০১৯ নং এফিডেভিট মুলে উক্ত ব্যবসায়ে মোঃ তৌফিকুর রহমান বরাবর হস্তান্তর করেন। আবু আহসান সিদ্দিক উক্ত এফিডেভিটে মোঃ তৌফিকুর রহমান বরাবরে ইটভাটার নাম পরিবর্তনের ক্ষমতা প্রদান করেন। মোঃ আবু বকর সিদ্দিক ও তৌফিকুর রহমান অংশিদারিত্বের ভিত্তিতে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছেন। আবু বকর সিদ্দিক পেশায় একজন রাজনীতিবিদ হওয়ায় তিনি তাহার ব্যবসায় নিয়মিত সময় দিতে না পারায় ইটভাটার যাবতীয় দেখাশুনা তৌফিকুর রহমান করে আসছিলেন। বিগত ২০২০ইং সালের ইটভাটা মৌসুম শেষ হইলে ইটভাটার ব্যবসায়িক অংশিদার আবু বকর সিদ্দিক তাহার ব্যবসায়িক লভ্যাংশের টাকার জন্য অংশিদার তৌফিকুর রহমানের নিকট ইটভাটার হিসাব ও লভ্যাংশ চাহিলে টালবাহনা করে সময় ক্ষেপন করেন।

পরবর্তীতে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত বৈশ্বিক মহামারীর কারণে দুর্যোগ পরিস্থিতির সৃষ্টি হওয়ায় তৌফিকুর রহমান পরিস্থিতি স্বাভাবিক হইলে আবু বকর সিদ্দিককে ইটভাটার হিসাব নিকাশ ও লভ্যাংশ প্রদান করবেন মর্মে আশ্বস্ত করেন। গত ২০২০ইং সালের শেষ দিকে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ব্যবসায়িক অংশিদার আবু বকর সিদ্দিক পুনরায় তাহার ব্যবসায়িক অংশিদার তৌফিকুর রহমানের নিকট ইটভাটার যাবতীয় হিসাব চাইলে তিনি টালবাহনা করে সময় ক্ষেপন করে আসছেন। এদিকে এন.বি.এম ইটভাটার অংশিদার আবু বকর সিদ্দিক লোকমারফৎ জানতে পেরেছেন তাহার অপর অংশিদার তৌফিকুর রহমান এন.বি.এম ইটভাটার নাম পরিবর্তন করে এম.টি.আর করেছেন। এ ঘটনায় ইটভাটার অংশিদার আবু বকর সিদ্দিক আশ্চর্য্য হয়ে তাহার ব্যবসায়িক অংশিদার তৌফিকুর রহমানকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তিনি গত ২১/০৪/২০১৯ইং তারিখ ৬৭৩/২০১৯ইং এফিডেভিটমুলে ইটভাটার যাবতীয় বিষয়াদি খরিদ করিয়া লইয়াছেন মর্মে উল্লেখ করে কোন প্রকার ব্যবসায়িক হিসাব/ লভ্যাংশ আবু বকর সিদ্দিককে প্রদান করতে অস্বীকার করেন। এ ঘটনায় আবু বকর সিদ্দিক ১৪/০১/২০২১ইং তারিখ ইটভাটার নাম পরিবর্তন সহ ইটভাটার হিসাব/ লভ্যাংশ প্রদানের জন্য তৌফিকুর রহমান বরাবর লিগ্যাল নোটিশ প্রদান করেন।

লিগ্যাল নোটিশ প্রাপ্তির পর তৌফিকুর রহমান ২৭/০১/২০২১ইং তারিখে লিগ্যাল নোটিশের জবাব প্রদান করেন। এ ঘটনায় আবু বকর সিদ্দিক তাহার ব্যবসায়িক অংশিদারিত্বের সমস্ত বিষয় উল্লেখপূর্বক ন্যায় বিচার প্রার্থনা করে কুড়িগ্রাম সদর বিজ্ঞ সহকারী জর্জ আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। অভিযোগটি আমলে নিয়ে কুড়িগ্রাম সদর সিনিয়র সহকারী জর্জ আদালত বিগত ২০/০২/২০২২ইং তারিখে বাদী পক্ষের নিযুক্ত বিজ্ঞ কৌশলী তলবনামায় অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার রিকোজিট দাখিল করায় বিজ্ঞ সিনিয়র সহকারী জজ আদালত অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার রিকোজিট ইস্যু করেন। এদিকে আদালতের নির্দেশ অমান্য করে তৌফিকুর রহমান তাহার মালিকানাধীন এম.টি.আর ইটভাটাটি পরিচালনা করে আসছে। এ ঘটনায় ইটভাটার ব্যবসায়িক অংশিদার আবু বকর সিদ্দিক আদালতের মাধ্যমে বিষয়টি দ্রুত নিস্পত্তি ও ন্যায় বিচার কামনা করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.