ফরিদপুরে অর্থপাচার মামলার জব্দকৃত বরকত-রুবেলের ১২ বাস পুড়িয়ে দেওয়ার ঘটনায় মামলা, তদন্ত কমিটি গঠন

মাহবুব পিয়াল, ফরিদপুর:
দুই হাজার কোটি টাকার অর্থপাচার মামলায় গ্রেফতার হওয়া ফরিদপুরের আলোচিত দুই ভাই সাজ্জাদ হোসেন বরকত ও ইমতিয়াজ হাসান রুবেলের মালিকানাধীন সাউথ লাইন পরিবহনের ১২টি বাস পুড়িয়ে দেওয়ার ঘটনায় মামলা হয়েছে।

এ ঘটনার তদন্তে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী পাঁচকর্ম দিবসের মধ্যে এ তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।এদিকে,গতকাল জেলা আইন শৃংখলা কমিটির সভায় দ্রুত এ ঘটনার সাথে জড়িত ব্যাক্তিদের সনাক্ত করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানানো হয়েছে।

অর্থপাচার মামলার আদালতের মাধ্যমে মোট সাউথ লাইন পরিবহনের ২২টি বাস আলামত হিসেবে জব্দ পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) ঢাকা। জব্দ করা বাসগুলি রক্ষণাববেক্ষণের দায়িত্বে ছিল জেলা পুলিশ। এ বাসগুলি শহরের গোয়ালচামটস্থ ওজোপডিকো কার্যালয়ের সামনে ঢাকা-বরিশাল মহা সড়কে পশ্চিম গোয়ালচামট মহল্লায় সাজ্জাদ হোসেন বরকাতের মালিকানাভুক্ত জায়গায়। বাসগুলির মধ্যে ১০টি সেড দিয়ে ঘেরা ছিল এবং ১২টি ওই জায়গার পাশে নিচু ভুমিতে রাখা ছিল।গত শুক্রবার দিবাগত রাত পৌনে ১টার দিকে ১২টি বাসের সামনের সাড়ির দক্ষিন দিক থেকে বাসে আগুন জ্বলে উঠতে দেখা যায়। মুহূর্তের মধ্যে আগুন অন্য বাসে ছড়িয়ে পড়ে।দমকল বাহিনীর একটি দল দেড় ঘন্টার চেষ্টায় রাত আড়াইটার দিকে আগুন নেভাতে সক্ষম হয়। কিন্তু ততক্ষণে ওই ১২টি বাস পুড়ে যায়।
গত শনিবার রাতে ফরিদপুর কোতয়ালী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আব্দুল গফ্ফার বাদী হয়ে বাসগুলি পুড়িয়ে দেওয়ার ঘটনাকে নাশকতা উল্লেখ করে ফরিদপুর কোতয়ালী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় অজ্ঞাত ব্যাক্তিদের আসামি করা হয়।
এদিকে,ফরিদপুরের পুলিশ সুপার গতকাল রবিবার এ ঘটনার তদন্তে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি করেন। এ কমিটির প্রধান করা হয়েছে অতিরক্তি পুলিশ সুপার(অপরাধ ও তদন্ত) মো. ইমদাদ হোসেন কে। কমিটির অপর দুই সদস্য হলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদরসার্কেল) সুমন রঞ্জন সরকার ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মো.হেলালউদ্দিন। আগামী পাঁচ কর্ম দিবসের মধ্যে গঠিত কমিটিকে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.