প্রচন্ড ঠান্ডা, দমকা হাওয়া ও গুড়ি গুড়ি বৃষ্টিতে কুড়িগ্রামে জবুথবু অবস্থা

আরিফুল ইসলাম জয়,কুড়িগ্রাম:
কুড়িগ্রামে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি আর ঠান্ডায় মানুষের জবুথবু অবস্থা হয়েছে। ব্যাহত হচ্ছে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা।

শুক্রবার (৪ ফেব্রুয়ারি) ভোররাত থেকে টানা বৃষ্টিতে সড়ক ও মাঠে-ময়দানে বৃষ্টি জমে পড়েছে। থেমে থেমে মেঘের গর্জনে বর্ষার আমেজ সৃষ্টি করেছে।

রাজারহাট কৃষি আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার অফিস সূত্রে জানা গেছে, সকাল ৯টায় পর্যন্ত ১১ মি.লি বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। আজ সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ১৩ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

এদিকে বৃষ্টির কারণে কর্মজীবী মানুষ কাজে বের হতে পারেনি। বিশেষ করে দিনমজুর, মিস্ত্রি, অটোরিকশা চালক, ভ্যান চালক ও নির্মাণ শ্রমিকরা ঘর থেকে বের হতে পারেনি। রাস্তাঘাটে যানবাহন ও লোক চলাচলও ছিল কম। বিপাকে পড়েছে দৈনিক আয়ের উপর নির্ভরশীল রিকশা ও ভ্যানচালকসহ নিম্ন আয়ের মানুষেরা।

কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গমারী উপজেলার সদর  ইউনিয়নের নির্মাণ শ্রমিক ঠিকাদার আতাউর রহমান  জানান, বৃষ্টির কারণে শ্রমিকরা কাজে আসতে না পারায় আমার ৩টি বিল্ডিংয়ের কাজ বন্ধ রয়েছে।

নাগেশ্বরী  উপজেলার সন্তোষপুর ইউনিয়নের কৃষক একাব্বর আলী জানান, এখন বোরো রোপনের ভরা মৌসুম। এতদিন শীত উপেক্ষা করে কাজে বের হয়েছিলাম। আজ বৃষ্টির কারণে যেতে পারেনি তার মতো অনেক দিনমজুর।

চর কুড়িগ্রাম বস্তির আবেদ আলী ও মনছার জানান, মাঘের মাঝামাঝি বৃষ্টির কারণে রাস্তায় মিশুক রিকশা নিয়ে চলা যাচ্ছে না। যাত্রীও নেই।

এদিকে বৃষ্টির কারণে আলু খেতে ছত্রাকের আক্রমণের শঙ্কা দেখা গিয়েছে। ইতোমধ্যে অনেক এলাকায় আলুতে লেট ব্লাইট বা ছত্রাকের আক্রমণ দেখা দিয়েছে। সদর উপজেলার শিবরাম গ্রামের কৃষক আব্দুল মজিদ জানান, গত কয়েকদিনের টানা শৈত্যপ্রবাহের কারণে তার আলুখেতে মড়ক দেখা দিয়েছে। বৃষ্টির কারণে মড়ক আরও বাড়ে কি-না এই নিয়ে চিন্তিত তিনি।

কুড়িগ্রাম কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা কৃষিবিদ শামসুদ্দিন মিয়া জানান, বৃষ্টি ও স্যাঁতস্যাঁতে আবহাওয়া আলুতে ব্লাইটের আক্রমণের জন্য উপযোগী পরিবেশ।

সদর উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা জাকির হোসেন জানান, আলু চাষিদের এই বৈরী আবহাওয়া সম্পর্কে সজাগ থাকতে হবে এবং একসঙ্গে একাধিক ওষুধ স্প্রে করে ছত্রাকের আক্রমণ ঠেকাতে হবে।

এদিকে রাজারহাট কৃষি আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনিছুর রহমান জানিয়েছেন, শুক্রবার সকাল ৯টায় ১১ মি.মি বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। এছাড়া একই সময়ে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ১৩ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

Leave a Reply

Your email address will not be published.