চিরিরবন্দরে প্রথমবারের মত রাইস ট্রান্সপ্লান্টার মেশিনের সাহায্য রোরো ধানের চারা রোপণ

মোঃ আসাদুল্লাহ আল গালিব,দিনাজপুর প্রতিনিধি:
উত্তরের শস্য ভান্ডার দিনাজপুর জেলার চিরিরবন্দর উপজেলায় এবার আমনে ধানের  ভালো ফলন ও দাম ভালো পাওয়ায় বোরো চাষাবাদে কৃষক পুরোদমে কোমর বেঁধে মাঠে নেমেছেন। অত্যাধুনিক যান্ত্রিক পদ্ধতিতে রোপণ করছেন বারো ধান। রাইস ট্রান্সপ্লান্টারে মাধ্যমে এ পদ্ধতিতে স্বল্প সময়ে অধিক জমিতে সুস্থ সবল চারা রোপন করছেন কৃষক।এতে সময়, শ্রম.অর্থ ও পানি সাশ্রয়ের পাশাপাশি জমিতে উর্বরা শক্তি বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে জানিয়েজেন উদ্যোক্তরা। সার ও সেচ নিশ্চিত হলে এবং আবহাওয়া অনুকুলে ধাকলে বোরো’র ভালো ফলনও আশা করছেন তারা।

চাষ, জমি তৈরি, বোরো বীজ তোলা ও বোনার কাজে ব্যস্ত সময় পাড় করছেন দিনাজপুরের কৃষক।অত্যাধুনিক পদ্ধতিতে রাইস ট্রান্সপ্লান্টার মেশিনের সাহায্যে অনেকে জমিতে রোরো ধানের চারা রোপণ করছেন। আমনের ভালো দাম পাওয়ায় এবার কুষকের আগ্রহ বেড়েছে বোরো চাষে। বিআর-১৬, ব্রি ধান-২৮,ব্রি ধান-২৯, ব্রি ধান-৫৮,ব্রি ধান-৬৮ ও ব্রি ধান-৭৪ সহ উচ্চ ফলনশীল জাতের বারো চাষ করছেন তারা।

দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার ভিয়াইল গ্রামের কৃষক মো. আমির খরসু জানান, এবার অত্যাধুনিক পদ্ধতিতে রাইস ট্রান্সপ্লান্টার মেশিনের সাহায্য   জমিতে রোরো ধানের চারা রোপণ করছি।স্বল্প খরচে ও স্বল্প সময়ে এ কার্যক্রম কৃষকদের মাঝে ব্যাপক আগ্রহ সৃষ্টি করেছে । এতে শ্রমিক খরচ কম ও অল্প সময়ে জমিতে চারা রোপন করা যাচ্চে।

চিরিরবন্দর উপজেলা কৃষি অফিসার মোছাঃ জোহরা সুলতানা বলেন, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ও বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরশন-বিএডিসি যৌথভাবে যান্ত্রিক পদ্ধতিতে বোরো ধান চারা রোপনের এ কার্যক্রমের উদ্যোগে নিয়েছে। এতে সময়, শ্রম.অর্থ ও পানি সাশ্রয়ের পাশাপাশি জমিতে উর্বরা শক্তি বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে জানিয়েজেন । চিরিরবন্দরের কৃষিতে নতুন যুগের সুচনা হলো আশা করি কৃষক এ আধুনিক যন্ত্র পাতির সাথে কৃষক মানিয়ে নিবে।অত্যাধুনিক পদ্ধতিতে রাইস ট্রান্সপ্লান্টার মেশিনের সাহায্যে রোপন করা হচ্ছে বোরো বীজতলা। যান্ত্রিক পদ্ধতিতে স্বল্প খরচে বোরো ধান চারা রোপন কার্যক্রম কৃষি সেক্টরে এক যুগান্তকারী পদক্ষেপ বলে দাবী সংশ্লিষ্টদের।

রাইস ট্রান্সপ্লান্টারে মাধ্যমে চিরিরবন্দরে ধানের চারা রোপনের শুভ উদ্বোধন করেন উপজেলা নির্বাহি অফিসার আয়েশা সিদ্দিকা । তিনি বলেন চিরিরবন্দরে যান্ত্রীকি করণের মাধ্যমে সমলয়ের মাধ্যমে চিরিরবন্দরে প্রথমবারের মাধ্যমে ধানের চারা লাগানো হলো। এতে আমরা সবাই মিলে যেটা দেখলাম শ্রমিক দিয়ে করলে সময় খরচ দুটাই বেশি লাগে যন্ত্রে মাধ্যমে দুটই কম। এতে কৃষক আরও বেশি লাভবান হবে বলে মনে করছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.