করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার পর্যটকশূন্য হচ্ছে কুয়াকাটায়

জাহিদুল ইসলাম জাহিদ, কুয়াকাটা:
সূর্যোদয় সূর্যাস্তের বেলাভূমি সমুদ্র কন্যা কুয়াকাটায় কমছে পর্যটক। করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় আবারো পর্যটক শূন্য হওয়ার পথে কুয়াকাটা। ভিড় নেই সমুদ্রসৈকত, রেস্টুরেন্ট এবং পর্যটন সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন পণ্যের দোকান ও স্পটগুলোতে। প্রতি বছর শীত মৌসুমে লাখো পর্যটক ভিড় করলেও এখন প্রায় জনশূন্য। পর্যটনের ভরামৌসুম হলেও বুকিং হচ্ছে না হোটেল-মোটেলগুলো।

৩ফেব্রুয়ারি, (বৃহস্পতিবার) পর্যটক শূন্য রয়েছে কুয়াকাটা। অনেকে বলছেন শুক্রবার কিছু সংখ্যক পর্যটক আসলো মহামারী করোনাভাইরাস বেড়ে যাওয়ায় বাকি দিনগুলো চোখে না পারার মতো পর্যটক থাকেন। এর কারনে লোকসানের মধ্যে পড়তে হচ্ছে পর্যটন ব্যবসা সংশ্লিষ্টদের। সরেজমিনে ঘুরে লক্ষ করেছি, স্থানীয় পর্যটন ব্যবসায়ীরা ও টুরিস্ট পুলিশ সহ স্বাস্থ্যবিধি মানা ও ঘুরতে আসা পর্যটকের মাস্ক পড়া নিশ্চিত করতে প্রচার প্রচারণা চালাচ্ছেন, তবে এই প্রচারণা মানছেন না পর্যটকরা। কুয়াশার চাদরে মুখরিত থাকতো কুয়াকাটা করোনাভাইরাস আনন্দমুখর পরিবেশটাকে ভয় পরিণত করেছে।

পর্যটন ব্যবসায়ী, কুয়াকাটা শুভ সংঘ ক্লাবের তথ্য বিষয়ক সম্পাদক মোঃ মিরাজুল ইসলাম বাবু বলেন, এতদিনের লোকসান কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করছিলাম, ভালো পর্যটক আশা শুরু করছিল, কিন্তু হঠাৎ করে করোনার প্রভাব বেড়ে যাওয়ায় আবারো পর্যটক শূন্য হয়ে পড়ছে অপরূপ সৌন্দর্যের স্থান কুয়াকাটায়।

কুয়াকাটা ট্যুরিজম ম্যানেজমেন্ট অ্যাসোসিয়েশন “কুটুম” সাধারণ সম্পাদক হোসাইন আমির বলেন, আমরা স্বাস্থ্যবিধি ও মাস্ক পড়ার বিষয় নিয়ে পর্যটকে সতর্ক করছি। কিছু পর্যটক মানছে বিষয়টা, আশা করছি আমাদের প্রচার-প্রচারণায় নতুন মাত্রা যুক্ত করে একশোত পার্সেন্ট মাস্ক পড়া নিশ্চিত করবো। আমরা আমাদের কুটুমের প্রতিটা সদস্য প্রস্তুত রয়েছে পর্যটকের সেবা নিশ্চিতে।

হোটেল মোটেল মালিক সমিতির সভাপতি মোঃ শাহ আলম হাওলাদার বলেন, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখছি আমাদের সংগঠনে থাকা সকল হোটেলগুলো সরকারি ঘোষিত নীতিমালা মেনে পর্যটক এর সর্বোচ্চ সেবা দিচ্ছে আমরা, কুয়াকাটা ঘুরতে আসা পর্যটকরা ঝামেলামুক্ত তাদের ভ্রমণ সফল করতে পারবে।

ট্যুরিস্ট পুলিশ কুয়াকাটা জোন পুলিশ পরিদর্শক হাসনাইন পারভেজ জানান, আপাতত পর্যটক কুয়াকাটা সৈকতে কম দেখা যাচ্ছে। তবে যারা আসছে তাদেরকে সামাজিক দূরত্ব বজায়, মাস্ক ব্যবহার, নিরপদে থাকাসহ সব ধরনের সচেতনতা করা হচ্ছে। সরকারের সব সিদ্ধান্ত মানতে এবং মানাতে আমরা কাজ করছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.