সোনাইমুড়ীতে ইউপি নির্বাচন: স্বতন্ত্র প্রার্থীদের বাড়িতে হামলা, বিদ্রোহীদের বহিষ্কার

খোরশেদ আলম শিকদার, নোয়াখালী:
নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে একের পর এক স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীদের বাড়িতে হামলা ও হুমকির ঘটনা ঘটেছে। অপর দিকে জেলা ও উপজেলা আওয়ামীলীগ কর্তৃক দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে ৫ জন বিদ্রোহী প্রার্থীদের বহিষ্কার এবং ৯জনকে কারণ দর্শানোর মধ্য দিয়ে চলছে সোনাইমুড়ী উপজেলার ইউপি নির্বাচন। এ দিকে দল থেকে কারণ দর্শানোর নোটিশ ও বিভিন্ন মহলের হুমকি ধমকির কারণে জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে বুধবার সকালে সংবাদ সম্মেলন করেছেন বারগাঁও ইউপির আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী নুরুন্নবী ভুঁইয়া।

এছাড়া উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্থীদের অভিযোগের ভিত্তিতে জানাযায়, সোনাপুর ইউপির স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আবদুল ওয়াব স্বপনের বাড়িতে হামলা, নদোনা ইউপির আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ইকবাল হোসেন লিটন এর বাড়িতেও ককটেল হামলার ঘটনা ঘটেছে। হামলার প্রতিবাদে বুধবার বিকেলে লিটন নদোনা ইউপির শিবপুরে সংবাদ সম্মেলন করেছেন। অন্যদিকে সোনাপুর ইউপির আওয়ামী লীগের নৌকার প্রার্থী আলমগীর হোসেন চৌধুরীর নির্বাচনী অফিসে মঙ্গলবার রাতে অগ্নিসংযোগ এর ঘটনা ঘটেছে। এদিকে জয়াগ ইউপির আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আবু মোহাম্মদ মহসিনকে হত্যা ও গুম করার হুমকি দেওয়া হয়েছে বলে তিনি সাংবাদিকদের জানান। এসব প্রার্থীরা নির্বাচন কমিশন সহ আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেছেন।

গত ২১ ডিসেম্বর মঙ্গলবার সোনাইমুড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আফম বাবুল বাবু কর্তৃক স্বাক্ষরিত দলীয় প্যাডে নোটিশের মাধ্যমে আমিশাপাড়া ইউপির বিপ্লব হোসেন, শাহাদাত হোসেন সুমন, খলিলুর রহমান সেলিম, দেওটি ইউপির বিদ্রোহী প্রার্থী ইকবাল হোসেন দুলাল ও সোনাপুর ইউপির আবদুর রহিম শামীমকে গঠনতন্ত্রের ৪৭এর ১১ উপধারা মোতাবেক স্হায়ী ভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। অপর দিকে বজরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বিদ্রোহী প্রার্থী ইকবাল হোসেন চৌধুরী, জয়াগ ইউপির বিদ্রোহী প্রার্থী আবু মোহাম্মদ মহসিন, নাটেশ্বর ইউপির আনোয়ার হোসেন স্বপন,নদোনা ইউপির ইকবাল হোসেন লিটন, দেওটি ইউপির রফিক উল্যাহ (রফিক দাদা) এবং বারগাঁও ইউপির যুবলীগের সভাপতি নুরুন্নবী ভুঁইয়া সহ ৯জনকে ৩দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করা হয়েছে।

বিদ্রোহী প্রার্থী দেওটি ইউপির ইকবাল হোসেন দুলাল ও জয়াগ ইউপির আবু মোহাম্মদ মহসিনসহ কয়েকজন সাংবাদিকদের জানান, আমরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতি করি, আমরা দলের নাম বিক্রি করে অন্যায় ভাবে টাকা কামাই করিনা, আমরা সৎ পথে রোজগার করি। দলের জন্য সব সময় নিবেদিত ছিলাম, ভবিষ্যতেও থাকবো। বর্তমান উপজেলা আওয়ামীলীগ ত্যাগী নেতা কর্মীদের মুল্যায়ন করতে ব্যর্থ হয়েছে। ইতোমধ্যে সোনাপুর ইউপির আওয়ামীলীগের সভাপতি নাজিম উদ্দিন পাটোয়ারীকে মনোনয়ন না দেওয়ায় তিনি দলীয় পদ থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন। আগে যারা নুন আনতে পানতা পুরাতো,তারা এখন কোটি কোটি টাকার মালিক কিভাবে হয়েছে আপনারা অনেকেই জানেন। বিগত ১৮ বছরের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটির বহিষ্কার অথবা শোকজ করা কতটুকু যৌক্তিক তা সময় বলে দিবে।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আফম বাবুল বাবু বহিষ্কার ও শোকজের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে নৌকার প্রার্থীর বিরুদ্ধে ভোট করার অভিযোগে ৫জনকে বহিষ্কার এবং ৯জনকে শোকজ করা হয়েছে। ৩দিনের মধ্যে শোকজের জবাব দিতে জন্য বলা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *