নির্বাচনী সহিংসতা, যুবলীগ নেতা নিহতের ঘটনায় বিক্ষোভ, মামলা

সাব্বির আলম বাবু, ভোলাঃ
ভোলায় যুবলীগ নেতা নিহতের ঘটনায় ১৬ জনের নামে মামলা এবং একজনকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় শুক্রবার রাতে ১৬ জনকে আসামি করে ভোলা থানায় একটি হত্যা মামলা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এনায়েত হোসেন।

তিনি বলেন, এ মামলায় আবুল বাশার নামের এক আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। জব্দ করা হয়েছে একটি স্পিড বোট। ভোলায় নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত যুবলীগ নেতা খোরশেদ আলম টিটুর হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবি জানিয়ে সদর থানা ও পুলিশ সুপারের কার্যালয় ঘেরাও করে বিক্ষোভ করেছে এলাকাবাসী।

নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন নান্নুর নেতৃত্বে শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে এ বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। বিক্ষোভকারীরা বলছেন, এ হত্যার সঙ্গে জড়িত পরাজিত স্বতন্ত্র প্রার্থী জামাল উদ্দিন চকেট ও তার সহযোগীরা। তাদের গ্রেপ্তারের দাবি তোলা হয়েছে। এ ঘটনায় শুক্রবার রাতে ১৬ জনকে আসামি করে ভোলা থানায় একটি হত্যা মামলা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এনায়েত হোসেন।

তিনি বলেন, এ মামলায় আবুল বাশার নামের এক আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। জব্দ করা হয়েছে একটি স্পিড বোট। নির্বাচনের পর ভোলার দৌলতখান উপজেলার মদনপুর ইউনিয়নের নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যরা কর্মীদের সঙ্গে শুক্রবার দুপুরে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। মদনপুর থেকে দুপুরের খাবার খেয়ে তারা ফেরার পথে ভোলা সদরের দিকে ট্রলারে করে যাওয়ার সময় মাঝ নদীতে তাদের ওপর কয়েকজন এলোপাতাড়ি গুলি চালায়। এ সময় ট্রলারের থাকা খোরশেদ আলম টিটু গুলিবিদ্ধ হন। তাকে উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনার

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ওই ট্রলারে নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান এ কে এম নাছির উদ্দিন নান্নু, ইউপি সদস্য মো. হেলাল, আব্দুল খালেক, মো. ইউসুফসহ অন্যান্য নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.