বিয়ের তিন মাসের মাথায় স্ত্রী হত্যার অভিযোগ

এম.এম. জায়েদ ইবনে শহিদ, শিবচর, মাদারীপুর:
মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ডে রীমা আক্তার (২২) নামের এক গৃহবধূর জানালার সাথে ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে শিবচর থানা পুলিশ । বুধবার বিকেলে শিবচর পৌরসভা এলাকায় ভাড়া বাড়ীতে এ ঘটনাটি ঘটে। নিহত রীমা আক্তার সালথা উপজেলার মাজেদ ইউনিয়নের ওরের কান্দির মন্টু শেখের মেয়ে এবং সালথার ভাওয়াল গ্রামের রিপন মিয়ার স্ত্রী। বৃহস্পতিবার (১৮ নভেম্বর) সকালে শিবচর থানা-পুলিশ লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মাদারীপুর সদর হাসপাতালে মর্গে পাঠিয়েছে।

এ বিষয়ে রীমার স্বামী রিপন মুঠোফনে জানান, আমার স্ত্রীর সাথে আমার কোন মন-মালিন্য হয়নি । কোন ঝগড়া -বিবাদ হয়নি। আমি সকালে খাবার খেয়ে অটো গাড়ি নিয়ে পেটার তাগিদে রাস্তায় বের হলে প্রতিবেশীরা আমাকে বাসায় ডাকে। আমি গিয়ে দেখি ভিতর থেকে দরজা আটকানো ছিল। শত চেষ্টা করেও ভিতরে ডুকতে পারিনি। কেন সে জানালার গ্রিলের সাথে গলায় উড়না পেচিয়ে আত্নহত্যা করে আমি বুঝতে পারছি না।

নিহত রীমার ভাই এনায়েত অভিযোগ করে বলেন, আমার বোন রিপনকে ভালোবেসে বিয়ে করেন। রিপন বিয়েরপর ১ লক্ষ টাকা দাবি করলে তাকে ১ লক্ষ টাকা দেয়া হয়। গহনা বন্ধক রেখে একটা অটোগাড়ি কিনে দেওয়া হয়। এরপর দুজনের সংসার ভালোই চলছিল। পুনরায় ঘরের আসবাবপত্র ক্রয়ের জন্য টাকা চাইলে অপরাগত স্বীকার করায় দুজনের মধ্যে দন্দ্ব হয়। এরি জের ধরে হত্যা করেছে বলে জানান নিহত রীমার ভাই এনায়েত।

শিবচর থানার ওসি মো: মিরাজ হোসেন জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় লাশ উদ্ধার করা হয়। সুরতহাল রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পরে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উল্লেখ্য, রীমাকে পারিবারিক ভাবে বিয়ে দেয়া হয় নগরকান্দা শাহিন মিয়ার সাথে। এ রিপন বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে তাকে পালিয়ে নিয়ে বিয়ে করে শিবচরে আশ্রয় নেন। রীমার প্রথম স্বামীকে ডিভোর্স দিতে বাধ্য করেছিলেন রিপন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *