বিজয়ী প্রার্থীকে ভোট না দেওয়ায় হামলার শিকার মুক্তিযোদ্ধা

মাদারীপুর প্রতিনিধি:
মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার ল²ীপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থী কাজী তোফাজ্জেল হোসেন গেন্দু কাজীকে ভোট দেওয়ায় জয়ী প্রার্থী মৌসুমী হক সুলতানার সমর্থকদের হামলায় বীর মুক্তিযোদ্ধা আইয়ুব আলী (৬০) গুরুতর আহত হয়েছেন। গতকাল সকালে ল²ীপুর বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হওয়া ল²ীপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিজয়ী প্রার্থী মৌসুমী হক সুলতানার তিনজন সমর্থক এসে অতর্কিত হামলা চালায় এবং আইয়ুব আলীর সার ও কীটনাশকের দোকান মেসার্স সেলিনা ট্রেডার্স স্বত্ত¡াধিকারী মুক্তিযোদ্ধা আইয়ুব আলী মোল্লার উপর। এ সময় তার দোকানে ভাঙচুর ও লুটপাট চালানো হয়। হামলাকারীদের বাঁধা দিতে গেলে গুরুতর আহত হন আইয়ুব আলী। পরে স্থানীয়রা তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় মাদারীপুর সদর হাসপাতাল ভর্তি করা হয়। বর্তমানে তিনি হাসপাতালের মুক্তিযোদ্ধাদের সংরক্ষিত শয্যায় চিকিৎসাধীন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মুক্তিযোদ্ধা আইয়ুব আলীর উপর হামলাকারীরা হলেন একই গ্রামের আনী হাওলাদারের ছেলে শহীদুল হাওলাদার, খালেক সরদারের ছেলে জাকির সরদার ও মালেক সরদারের ছেলে রাসেদ সরদার।

মাদারীপুর সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মুক্তিযোদ্ধা আইয়ুব আলী বলেন, হঠাৎ করে তিনজন লোক এসে কাঁঠের চলা দিয়ে আমাকে বেদম মারধর করে। আমার ডান হাতের গোড়া, পিঠে ও ঘারে বেধড়ক পিটায়। পরে আমি হুশ হারিয়ে ফেলি। পরে স্থানীয় ও আমার পরিবারের লোকজন এসে আমাকে হাসপাতালে ভর্তি করে। ঘটনার পরপরেই পুলিশকে খবর দেওয়া হয়েছে। তবে পুলিশ কাউকে পারে নাই।

এ ব্যাপারে বিজয়ী চেয়ারম্যান প্রার্থী মৌসুমী হক সুলতানা বলেন, ‘পরাজয় সইতে না পেরে তোফাজ্জেল হোসেন গেন্দু কাজী তার কমী-সমর্থক দিয়ে আমার নামে মিথ্যে ও বানোয়াট কথা বলে বেড়াচ্ছে। ওই মুক্তিযোদ্ধাকে আমার কোন নেতাকর্মী মারধর করেনি। বরং গেন্দু কাজীর লোকজন মারধর করে আমার লোকদের ফাঁসানোর ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে।

জানতে চাইলে কালকিনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইসতিয়াক আশফাক বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধার দোকানপাটে হামলা ও ভাঙচুরের বিষয়টি পুলিশ অবগত আছেন। এ ঘটনায় যারা জড়িত, তাদের ধরতে পুলিশের একটি টিম কাজ করছে। তবে এ হামলাটি নির্বাচনের পরবর্তী সহিংসতার একটি অংশ। বিষয়টি পুলিশ খুবই গুরত্বসহকারে দেখবেন।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *