কুয়াকাটায় শেখ রাসেল দিবস পালিত

জাহিদুল ইসলাম জাহিদ, কুয়াকাটা:
কুয়াকাটা পৌরসভার উদ্যোগে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন উপলক্ষে, কুয়াকাটায় নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে উদযাপন করা হয়েছে শুভ জন্মদিন।

শেখ রাসেল দীপ্ত জয়োল্লাস, অদম্য আত্মবিশ্বাস’ এই প্রতিপাদ্য সামনে রেখে রাষ্ট্রীয়ভাবে নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে আজ তাঁর জন্মবার্ষিকী উদযাপন করা হচ্ছে। এবারই প্রথম ‘ক’ শ্রেণিভুক্ত জাতীয় দিবস হিসেবে শেখ রাসেলের জন্মদিন উদযাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার, সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী কুয়াকাটায় শেখ রাসেল দিবস’ হিসেবে পালন করা হচ্ছে।

আজ সোমবার (১৮ অক্টোবর) পৌরসভা কার্যালয় মেয়র আনোয়ার হাওলাদারের নেতৃত্বে সকাল ১১ টায়, কুয়াকাটা পৌরসভা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের  উদযাপনে অংশগ্রহণ করে। এছাড়াও সকাল ১০টায় কুয়াকাটা পৌরসভায় বিভিন্ন বিদ্যালয় গুলোতে নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে পালিত হয়েছে শেখ রাসেলের শুভ জন্মদিন। 

কুয়াকাটা ৬০নং লতাচাপলী  সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শেখ রাসেলের স্মরণে, শ্রদ্ধা নিবেদনে চিত্র অংকন প্রতিযোগিতা হয়,এতে অংশগ্রহণ করে এ বিদ্যালয় শতাধিক শিক্ষার্থীরা, এসময় বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্যসহ শিক্ষক শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলো।

 এদিকে কুয়াকাটা পৌরসভার উদ্যোগে শেখ রাসেলের জন্মদিন কে স্মরণ রাখতে, এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধরে কুয়াকাটা পর্যটন কেন্দ্রের হোটেল মোটেল মালিকদের নিয়ে আইন শৃঙ্খলা বিষয়ক মতবিনিময় সভা করেছে পৌর কর্তৃপক্ষ, সভা শেষে কেক কেটে শেখ রাসেল এর জন্মদিন উদযাপন করে, এসময় উদযাপনে উপস্থিত ছিলেন কুয়াকাটা পৌর মেয়র, কাউন্সিলর, হোটেল মালিক, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী সহ  বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন উদযাপনে উপস্থিত ছিলেন।

 

শেখ রাসেল দিবস স্মরণ করে রাখতে, মহিপুর শেখ রাসেল সেতু কে আলোকসজ্জায় সজ্জিত করেছে।

কুয়াকাটা ৬০নং লতাচাপলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ নজরুল ইসলাম বলেন, আমি লক্ষ করলাম আজকে আমার শিক্ষার্থীরা বঙ্গবন্ধুর পুত্র শেখ রাসেলের ছবি অঙ্কন করেছে, এই ছবিতে আমি লক্ষ করলাম এখনও আমাদের মাঝে বেঁচে আছে শেখ রাসেল, আমার শিক্ষার্থীরা কিছু ছবি এঁকেছে যা দেখে আমি নিজেই আনন্দিত, কারণ ছোট ছোট শিক্ষার্থীরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে এবং দেশকে ভালবাসতে পেরেছে বলে এত সুন্দর ছবি আঁকা সম্ভব হয়েছে।

১৯৬৪ সালের এই দিনে ঐতিহাসিক ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরের বাড়িতে জন্ম শেখ রাসেলের।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে শেখ রাসেলকেও হত্যা করে বিপথগামী সেনা সদস্যরা। রাসেল রাজধানীর ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুলের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র ছিলেন। বঙ্গবন্ধুর রক্তের উত্তরাধিকারদের নিশ্চিহ্ন করতে ১১ বছরের শিশু রাসেলকে হত্যা করা হয়।

সভায় মেয়র আনোয়ার হাওলাদার বলেন,১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট এর কথা মনে পড়ে তখন নিজেই নীরবতা হয়ে যাই , কারণ যাদের কারণে আজকে বিশ্বের খাতায় সোনার বাংলাদেশ নামটা প্রকাশিত পেয়েছে, কিন্তু বলতে গেলে নোনা জল গড়িয়ে পড়ে চোখ থেকে, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারকে এমনকি শেখ রাসেল কেও স্বাধীন দেশ সোনার বাংলাদেশের মধুর স্বাদ নিতে দিল না রাজাকাররা। সবশেষে তিনি বলেন জন্মদিনে বঙ্গবন্ধুর পত্র শেখ রাসেলকে কুয়াকাটা পৌরসভার পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা জানাচ্ছি, এবং পর্যটকদের সেবায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুপরিচিত পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটা উন্নয়নের লক্ষ্যে ভালো কিছু উপহার দিব পর্যটকদের, শেষে বলেন বঙ্গবন্ধুর প্রতি ও বঙ্গবন্ধুর পরিবারের প্রতি আমরা সবসময় কৃতজ্ঞ থাকি।

মন্ত্রিপরিষদের সিদ্ধান্ত অনুসারে এ বছর থেকে শেখ রাসেলের জন্মদিন ‘শেখ রাসেল দিবস’ হিসেবে পালন করা হচ্ছে। শিশু-কিশোরদের কাছে শেখ রাসেলকে তুলে ধরতে এই উদ্যোগ নিয়েছে সরকার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *